মঙ্গলবার ২৭ জুলাই ২০২১
  • প্রচ্ছদ » other important » এরশাদের মৃত্যুর দু’বছর পর জাতীয় পার্টিতে ফিরছেন শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন



এরশাদের মৃত্যুর দু’বছর পর জাতীয় পার্টিতে ফিরছেন শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
13.07.2021

নিউজ ডেস্ক : একাধিক সময়ে বিএনপি এবং চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে নিয়ে বেফাঁস মন্তব্য করে দলের অভ্যন্তরে সমালোচিত হয়েছেন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন। সর্বশেষ ডিবিসি নিউজ চ্যানেলে খালেদা জিয়াকে গৃহিনী বলে আখ্যায়িত করার পর থেকে বিএনপির সিনিয়র নেতাদের তোপের মুখে বর্তমানে দল থেকে দূরে আছেন এরশাদের শাসনামলে উপপ্রধানমন্ত্রী হওয়া এই নেতা। সে সময় গুঞ্জন উঠেছিল বিএনপি ছাড়তে পারেন শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন। তবে এরশাদের মৃত্যুর দুই বছর পর সেই গুঞ্জন নতুন করে ডালপালা মেলতে শুরু করেছে।

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান শাহ মোয়াজ্জেম হোসেনের এক ঘনিষ্ঠজন তার জাতীয় পার্টিতে ফিরে যাওয়ার গুঞ্জনের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

এ প্রসঙ্গে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সেই ব্যক্তি বলেন, বিএনপি আর কতো সহ্য করবে? দলের অভ্যন্তরে থেকে বারবার দলের বিরুদ্ধাচরণ তো মেনে নেয়া যায় না। এ কারণে বিএনপির নীতিনির্ধারণী কমিটি থেকে শাহ মোয়াজ্জেম হোসনকে সাবধানে কথা বলার অনুরোধ করেছে। তাতেই ক্ষিপ্ত হয়ে মোয়াজ্জেম হোসেন দলীয় কর্মকাণ্ড থেকে নিজেকে দূরে রাখার সিদ্ধান্ত নেন।

এ বিষয়ে মোয়াজ্জেম হোসেনেপন্থী আইনজীবী ব্যারিস্টার কায়সার কামাল বলেন, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ মোয়াজ্জেম হোসেনেকে রাজনীতির লাইম লাইটে এনেছিলেন। এরশাদ না থাকায় জাতীয় পার্টির নেতৃত্ব সংকট দেখা দেয়ার শঙ্কা সৃষ্টি হয়েছে। এছাড়া বিএনপি প্রসঙ্গে সত্য বলায় তাকে দলের অভ্যন্তরে নানা অপমান সহ্য করতে হয়েছে। যার কারণে মোয়াজ্জেম ভাই এক ঢিলে দুই পাখি মারতে চান।

তিনি আরো বলেন, গুঞ্জন শুনেছি-বিএনপি ছেড়ে জাতীয় পার্টিতে যোগ দিয়ে তার পুরনো নীড়ে ফিরতে চান শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন। জাতীয় পার্টি করে ক্ষমতার আশে পাশে থাকার সুযোগ হবে বলে মনে করছেন মোয়াজ্জেম হোসেন। মূলত এই কারণেই বিএনপি ছাড়ার কথা ভাবছেন তিনি।

এই বিষয়ে মোয়াজ্জেম হোসেনের ঘনিষ্ঠ এক আত্মীয় বলেন, মোয়াজ্জেম হোসেন বিএনপির জন্য এত কিছু করেও উপযুক্ত মর্যাদা পাচ্ছেন না। বিষয়গুলোতে অসন্তোষ প্রকাশ করেছেন তিনি। তাই তিনি জাতীয় পার্টিতে যোগ দিতে চাচ্ছেন, এমন গুঞ্জন আমিও শুনেছি। জাতীয় পার্টির সঙ্গে তার রাজনৈতিক সম্পর্ক আগে থেকেই ভালো। এরশাদের অবর্তমানে জাতীয় পার্টিতে যোগ দিলে অবশ্য তিনি জাতীয় পার্টির হাল ধরতে পারবেন।

এদিকে ১৪ জুলাই শাহ মোয়াজ্জেম হোসেনকে জাতীয় পার্টিতে যোগ দেওয়ার প্রস্তাব দিয়ে জাতীয় পার্টির একজন প্রেসিডিয়াম সদস্য বলেন, ‘এরশাদ সাহেবের মরার পর থেকে জাতীয় পার্টিতে হাহাকার বিরাজমান। আপনি আপনার ঘরে ফিরে আসুন। আপনাকে সম্মান ও মর্যাদা দেয়া হবে। বিএনপিতে আর কত অপমানিত হবেন?’

জাতীয় পার্টির সেই নেতার প্রস্তাবের পর বিএনপির সিনিয়র এক নেতা বলেন, জাতীয় পার্টির এই কথার পর মোয়াজ্জেম হোসেনের রাজনীতি আর বোঝার বাকি থাকে না। এখন আমাদের কাছে সব কিছু ক্লিয়ার হয়েছে। কেন ম্যাডাম খালেদা জিয়াকে জেল থেকে বের করতে এতো দেরি হচ্ছে? ইতিহাস সাক্ষী, মোয়াজ্জেম হোসেনের রাজনীতি মানেই বেইমানির রাজনীতি। দলকে বিপদে ফেলে তিনি এখন জাতীয় পার্টিতে যোগ দিবেন, এটা তো অনুমেয় ছিল।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি