মঙ্গলবার ২৭ জুলাই ২০২১
  • প্রচ্ছদ » Lead 1 » করোনা : সরকারের অন্ধ বিরোধিতাই বিএনপির একমাত্র রাজনীতি



করোনা : সরকারের অন্ধ বিরোধিতাই বিএনপির একমাত্র রাজনীতি


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
13.07.2021

ডেস্ক রিপোর্ট: দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণের শুরু থেকেই সরকার জনগণের জন্য আন্তরিকভাবে কাজ করে যাচ্ছে। সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে লকডাউন, নিষেধাজ্ঞা, টিকা কার্যক্রম পরিচালনা করছে। সেইসাথে করোনায় অর্থনীতি ঠিক রাখতে নানা পদক্ষেপ নিয়েছে। গরীব-অসহায়দের জন্য বিভিন্ন সময় ঘোষণা করেছে হাজার হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা প্যাকেজ। যার ফলে করোনা পরিস্থিতিতে দেশের মানুষ ভালো আছে। বিশ্বের উন্নত অনেক দেশের চেয়ে বাংলাদেশ করোনা সংকট ভালোভাবে মোকাবেলা করেছে বলেও বৈশ্বিক অনেক জরিপে উঠে এসেছে। কিন্তু এত সাফল্যের পরও করোনা ঠেকাতে সরকারের কার্যক্রমের বিরোধিতা করেই যাচ্ছে বিএনপি। জানা গেছে, করোনা সংক্রমণ শুরুর পর থেকেই দলটি সিদ্ধান্ত নেয়, যেভাবেই হোক সরকারের বিরোধিতা করে যেতে হবে। তাই সরকার লকডাউন দিলেও তারা সমালোচনা করে আবার লকডাউন তুলে নিলেও সমালোচনা করে। বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, বিএনপির এই কর্মকাণ্ড দায়িত্বশীল নয়, এসব অন্ধ বিরোধিতার নমুনা।

দেশে করোনার ডেল্টা ভেরিয়্যান্টের আক্রমণের পর প্রতিদিন সংক্রমণ বাড়তে থাকে। এর ফলে জনগণকে রক্ষা করতে সরকার কঠোর বিধিনিষেধ আরোপ করে। তখন বিএনপির মহাসচিব সংবাদ সম্মেলন করে বলেছিলেন, লকডাউন দিয়ে জনগণের ভোগান্তি করা হচ্ছে। লকডাউন কার্যকর হবে না। অথচ লকডাউনের কারণে করোনা পরিস্থিতির উন্নতি ঘটেছে। এখন সরকার যখন জনগণের জীবিকা এবং ঈদ উদযাপনকে সামনে রেখে আট দিনের জন্য লকডাউন শিথিল করেছে তখন আবারও বিরোধিতায় নেমেছে বিএনপি। রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আজ মঙ্গলবার সকালে এক কর্মসূচিতে বিএনপির কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ এমরান সালেহ প্রিন্স বলেন, এক সপ্তাহের জন্য বিধিনিষেধ শিথিল করা সরকারের ভুল সিদ্ধান্ত। লকডাউন শিথিল করার সিদ্ধান্তে করোনা পরিস্থিতির অবনতি ঘটবে। মির্জা ফখরুলের লকডাউন বিরোধিতার এক সপ্তাহের মধ্যেই এ বক্তব্য দিলেন প্রিন্স।

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, বিএনপি আসলে পাগল হয়ে গেছে। কখন কী বলছে ঠিক নেই। ওদের দলে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় কীভাবে আল্লাই জানে! লন্ডন থেকে তারেক রহমান একরকম কথা বলে, দেশে মির্জা ফখরুল আরেকরকম কথা বলে। দলটি যে কে চালায় সেটা কেউই জানে না! জাফরুল্লাহ বলেন, করোনা ঠেকাতে লকডাউন তো খুবই কার্যকরী, সেই সাথে সরকার যত দ্রুত জনগণকে টিকা দিতে পারবে তত দ্রুত করোনা পরিস্থিতির উন্নতি হবে। সরকারের নানা ব্যর্থতা আছে, সেটা সারা দুনিয়ার বিভিন্ন দেশের সরকারেরই আছে। করোনা তো মহামারি, বিশ্ববাসী ভুগছে। এখন সরকার করোনা নিয়ে যে সিদ্ধান্তই নেয়, সেটার বিরোধিতা করতেই হবে এমন মানসিকতা তো সুস্থ রাজনীতি নয়, এটা অন্ধ বিরোধিতা। বিএনপি অন্ধ হয়ে গেছে।

জানা গেছে, অপরাজনীতির কারণে জনগণের কাছে প্রত্যাখ্যাত হওয়ার পর থেকেই বিএনপি এরকম অন্ধ সরকার বিরোধিতার কৌশল নিয়েছে। লন্ডন থেকে তারেক দলের নেতাদের বলেছেন, সরকার যাই করবে, সেটার বিরোধিতা করতে হবে। বিএনপির নেতারাও সেটাই করছেন। ফলে একদিকে সমালোচিত হচ্ছে বিএনপি, অপরদিকে এরকম অপরাজনীতির কারণে জনগণ দলটির ওপর আরও বিরক্ত হচ্ছে। বিশ্লেষকরা বলছেন, করোনা নিয়ে বিএনপির রাজনীতি দলটিকে আরও জনগণ থেক দূরে সরিয়ে দিচ্ছে। জনগণের পাশে না থেকে ঘরে বসে সরকারের অন্ধ বিরোধিতার ফলে বিএনপির ওপর মানুষের ক্ষুব্ধতা বাড়ছে। সংকটে জনগণ নেতাদের পাশে চায়, কিন্তু বিএনপির নেতারা কেউই জনগণের পাশে দাঁড়াচ্ছেন না। এর ফলে এরপর রাস্তায় নামলে জনগণের হাতে বিএনপির নেতাদের লাঞ্ছিত হওয়ার সম্ভাবনা বাড়ছে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি