রবিবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১
  • প্রচ্ছদ » Lead 4 » পদ বাঁচাতে খালেদার শরণাপন্ন হলেন মির্জা ফখরুল!



পদ বাঁচাতে খালেদার শরণাপন্ন হলেন মির্জা ফখরুল!


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
25.07.2021

নিউজ ডেস্ক: বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া করোনাভাইরাসের টিকা নেওয়ার পর থেকেই পদ হারানোর আশঙ্কায় উৎকণ্ঠার সাথে দিন যাপন করছেন দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। জানা গেছে, মির্জা ফখরুলের প্ররোচনায় করোনার টিকা নেন খালেদা জিয়া। এই ঘটনায় ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া দেখান বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি পলাতক আসামি তারেক রহমান। মির্জা ফখরুলকে মহাসচিব পদ থেকে বহিষ্কারের হুমকি দেন। এরপর থেকেই ভয়ে আছেন মির্জা ফখরুল। পদে থাকতে খালেদা জিয়ার শরণাপন্ন হয়েছেন তিনি।

সূত্র জানায়, ঈদের পরদিন খালেদা জিয়ার গুলশানের বাসভবন ফিরোজায় যান মির্জা ফখরুল। এসময় তার সাথে থাকা এক বিএনপি নেতা জানান, খালেদার সাথে দেখা করে ফখরুল তার সাহায্য চান। তবে খালেদা তাকে নিশ্চিত না করলেও এ বিষয়ে তারেক রহমানের সাথে কথা বলবেন বলে আশ্বস্ত করেছেন।

জানা গেছে, দেশে করোনার সংক্রমণের শুরু থেকেই সরকারের বিরুদ্ধে নানা গুজব এবং অপপ্রচার করছে বিএনপি। তারেক রহমানের নির্দেশে বিএনপি নেতারা এই অপপ্রচার চালিয়ে আসছিলেন। করোনার টিকা নিলে মৃত্যু ঘটবে এমন মিথ্যাচারও করে দলটির নেতারা। এসব অপপ্রচারের নেপথ্যে রয়েছেন তারেক রহমান। রাজপথে আন্দোলনে ব্যর্থ হয়ে এবং জনগণের কাছে প্রত্যাখ্যাত হয়ে ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে সরকার পতনের অপচেষ্টায় তারেক বিএনপি নেতাদের করোনা নিয়ে বিভ্রান্তি ছড়ানোর নির্দেশ দেন। এরপর থেকে বিএনপি নেতারা প্রতিদিনই গুজব ছড়াচ্ছিলেন। কিন্তু করোনায় অনেক মানুষের মৃত্যু হলে এবং টিকার কার্যকারিতা দেখে তারেকের নির্দেশ উপেক্ষা করে টিকা নেন মির্জা ফখরুল। এরপর তিনি খালেদাকেও টিকা নেওয়ার পরামর্শ দেন। প্রথমে খালেদা নিতে না চাইলেও হাসপাতাল থেকে বাসায় এসে মৃত্যু চিন্তায় আচ্ছন্ন হয়ে একপর্যায়ে করোনার টিকা নেন। আর এই খবরেই ক্ষুব্ধ হন তারেক রহমান।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস বলেন, ফখরুল সাহেব ম্যাডামের কাছে গিয়েছিলেন শুনেছি। তবে ম্যাডাম কিছু করতে পারবেন কি না জানি না। সব সিদ্ধান্ত তো তারেক সাহেব নেন। আমার মনে হয় টিকা নিয়ে ভালোই করেছেন ম্যাডাম। উনি বয়স্ক মানুষ, ঝুঁকি এড়াতে টিকা নেওয়ার দরকার ছিল। তারেক রহমানের হুমকির কথা আমি শুনেছি। রাজনৈতিক ব্যর্থতার জন্য মির্জা ফখরুলকে অব্যাহতি দিলে কোন সমস্যা ছিল না, কিন্তু টিকা নেওয়ার জন্য যদি অব্যাহতি দেওয়া হয় তবে সেটি ভালো হবে না। দলের জন্য খারাপ একটি নজির হয়ে থাকবে। তারেক রহমান শেষ পর্যন্ত ক্রোধ প্রশমিত করে এরকম হঠকারী সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসবেন বলে আশা করছি।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি