রবিবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১
  • প্রচ্ছদ » Lead 1 » ফখরুলের স্বীকারোক্তি : দক্ষ রাজনীতিবিদের অভাবে বিএনপির করুণ পরিণতি!



ফখরুলের স্বীকারোক্তি : দক্ষ রাজনীতিবিদের অভাবে বিএনপির করুণ পরিণতি!


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
26.07.2021

ডেস্ক রিপোর্ট : রাজনীতিবিদরা রাজনীতিতে নেই বলে আক্ষেপ করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। সোমবার দুপুরে বিএনপির প্রয়াত সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুল আউয়াল খানের প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে এক স্মরণসভায় তিনি আক্ষেপ করে এই কথা বলেন। বিএনপির রাজনৈতিক ব্যর্থতার জন্য দক্ষ রাজনীতিবিদের অভাব স্বীকার করেছেন মির্জা ফখরুল। তার এই স্বীকারোক্তির পর প্রশ্ন উঠেছে, তাহলে বিএনপি পরিচালনা করে কে?

জানা গেছে, দীর্ঘদিন ক্ষমতার বাইরে থাকায় হতাশ হয়ে পড়ছেন বিএনপির নেতাকর্মীরা। সেই হতাশার কথা উঠে এসেছে আবদুল আউয়াল খানের মৃত্যুবার্ষিকীর স্মরণসভায়। আলোচনার একপর্যায়ে বিএনপি মহাসচিব বলেন, “শুধু বাংলাদেশে নয়, সমগ্র বিশ্বেই একটা নষ্ট সময় চলছে। যে নষ্ট সময়টাতে রাজনীতিবিদদের ভালো থাকা, রাজনীতিবিদদের সঠিক রাস্তায় যাওয়া, রাজনীতিবিদদের সঠিকভাবে রাজনীতিকে নির্মাণ করা- এটা অত্যন্ত কঠিন কাজ। সবচেয়ে বড় জিনিস হচ্ছে যে, এখন রাজনীতিবিদরা রাজনীতি করছেন না, রাজনীতিবিদরা রাজনীতিতে নেই।”

সভায় উপস্থিত বিএনপির এক নেতা নাম না প্রকাশের শর্তে বলেন, আন্দোলনে বিএনপির ব্যর্থতার জন্য দক্ষ রাজনীতিবিদের অভাব সবচেয়ে বড় কারণ। মির্জা ফখরুল সেই সত্য দিকটাই তুলে ধরেছেন। আমরা জানি বর্তমানে আমাদের দলে রাজনীতিবিদদের চেয়ে ব্যবসায়ী, সাবেক আমলাদের প্রাধান্য বেশি। দলে ব্যবসায়ীরা টাকা দেন, ফলে তাদের গুরুত্ব আছে। কিন্তু আমরা মাঠে রাজনীতি করি, জনগণের পালস বুঝি। কিন্তু আমরা সিদ্ধান্ত নিতে পারি না, সিদ্ধান্ত নেয় যারা বেশি টাকা দিতে পারে।

বিএনপি মহাসচিবের এই আক্ষেপের বিষয়ে জানতে চাইলে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, আমাদের দেশের বড় দুই দলেই এখন রাজনীতিবিদের চেয়ে ব্যবসায়ীদের প্রাধান্য বেশি। তবে আওয়ামী লীগ রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষেত্রে রাজনীতিবিদদের প্রাধান্য দেয়। আবার আওয়ামী লীগের বড় বড় নীতিনির্ধারণী পদে রাজনীতিবিদরাই রয়েছেন। ফলে রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষেত্রে তারা জনগণের কথা ভাবেন বেশি। এর ফলেই এতদিন ক্ষমতায় থাকতে পারছে আওয়ামী লীগ। অপরদিকে বিএনপি একটি বড় দল হলেও তাদের নীতিনির্ধারণী পর্যায়ে ব্যবসায়ী, সাবেক সামরিক-বেসামরিক আমলাদের প্রাধান্য বেশি। ঐতিহাসিকভাবে আমলারা লোভী চরিত্রের, তারা আগে নিজেদের স্বার্থ দেখে। ফলে রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত নিতে গেলে তারা আগে নিজের ভালোর কথা চিন্তা করে, পরে জনগণের কথা ভাবে। যতদিন খালেদা জিয়া বিএনপি নিয়ন্ত্রণ করেছেন, বিএনপিতে রাজনীতিবিদরা কিছুটা প্রাধান্য পেয়েছেন। কিন্তু এখন তো তারেক রহমান সব নিয়ন্ত্রণ করেন। এই ছেলে তো রাজনীতি বোঝে না, শুধু টাকার কথা ভাবে। ফলে বিএনপিতে থাকা রাজনীতিবিদরা পিছিয়ে পড়েছে, আমলারা সামনের সারিতে এসেছে। যার ফলে বিএনপি আন্দোলন সফল করতে পারছে না।

রাষ্ট্রবিজ্ঞানী রওনক জাহান বলেন, একটা রাজনৈতিক দলের সিদ্ধান্ত গ্রহণের সাথে যারা সম্পৃক্ত তারা সেই দলের রাজনৈতিক সাফল্যের কারিগর হিসেবে কাজ করেন। বিএনপির মহাসচিব সঠিক দিকটিই তুলে ধরেছেন। বিএনপি এতদিন ধরে আন্দোলন করলেও তাদের ব্যর্থতার মূল কারণ মাঠ থেকে উঠে আসা রাজনীতিবিদদের চেয়ে আমলা-ব্যবসায়ীদের প্রাধান্য। মূলত এরাই দল চালায়। আমলা-ব্যবসায়ীদের সাথে রাজনীতিবিদদের ব্যালান্স করতে ব্যর্থ হয়েছে বিএনপি, সেদিক দিয়ে এগিয়ে আছে আওয়ামী লীগ। এর ফলে আওয়ামী লীগ দীর্ঘদিন ক্ষমতা ধরে রাখতে পেরেছে। অপরদিকে বিএনপি তাদের ব্যর্থতার পাল্লা ভারী করে চলেছে। কিন্তু দলটির নেতৃত্বের এ বিষয়ে কোন বোধোদয় হয়েছে বলে মনে হয় না। অদূর ভবিষ্যতেও বিএনপির জন্য ভালো কোন সম্ভাবন দেখা যাচ্ছে না।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি