রবিবার ২৬ সেপ্টেম্বর ২০২১



তারেকের ফোন বৃত্তান্ত


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
30.07.2021

নিউজ ডেস্ক: বিএনপির একজন গুরুত্বপূর্ণ নেতাকে লন্ডন থেকে ফোন করলেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক জিয়া। ফোনে তাকে কিছুক্ষণ ধমক দিলেন। এক পর্যায়ে ফোনের লাইন কেটে গেল। সেই ফোনে লন্ডনের নাম্বারের ওই নেতা আবার ফোন করলেন কিন্তু দেখা গেল মোবাইলে বলা হচ্ছে যে, দ্যা মোবাইল ক্যাননট বি রিচ এট দিস মোমেন্ট। নেতা বেশ ভয়ই পেয়েছিলেন তারেকের ফোনে। সেজন্য তিনি বিএনপি মহাসচিবের দ্বারস্থ হলেন। বিএনপি মহাসচিব নিশ্চয়ই জানবেন তারেক জিয়ার আসল ফোন নাম্বারটা। তারেক জিয়ার ফোন নাম্বারটা জানতে চাইলেন বিএনপি মহাসচিবের কাছে।

মহাসচিব জিজ্ঞেস করলেন, কেন কি হয়েছে? ওই নেতা বললেন যে, তাকে তারেক জিয়া ফোন করেছিলেন এবং কিছু বিষয়ে পরামর্শ দিয়েছেন। কিন্তু মাঝখানে লাইনটা কেটে গেছে। এখন তিনি তারেক জিয়াকে ফোন করেও পাচ্ছেন না। মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন যে, তারেক জিয়ার কোন নির্দিষ্ট নাম্বার নেই। একেক নাম্বারে একেক জনকে একেক সময়ে তিনি ফোন করেন। বিএনপির মধ্যে একজন এখন সকলেই জানেন যে তারেক জিয়ার কোন নির্দিষ্ট ফোন নাম্বার নেই। সাধারণ মানুষের যেমন একটি নির্দিষ্ট নাম্বার থাকে সেই নাম্বারে তার সঙ্গে যোগাযোগ করে পাওয়া যায়, তারেক জিয়ার ক্ষেত্রে ব্যাপারটা তেমন না। বরং তারেক জিয়ার ক্ষেত্রে ব্যাপারটি দাউদ ইব্রাহিম বা অন্যান্য শীর্ষ সন্ত্রাসীদের মতো।

তারেক জিয়ার এ পর্যন্ত ১৬ টি বিভিন্ন নাম্বারের সন্ধান পেয়েছি আমরা অনুসন্ধানে। বিএনপির বিভিন্ন নেতা, তৃণমূলের নেতাকর্মীদের কাছে এই ১৬ টি নাম্বার থেকে বিভিন্ন সময়ে তিনি ফোন করেন। কিন্তু এই নেতারা যখন তাকে পাল্টা ফোন করতে যান তখন এই ফোন নাম্বারে তাকে পাওয়া যায় না। বিএনপি নেতারা স্বীকার করেছেন যে, তারেক জিয়া নানা রকম বাস্তবতায় ফোনের সিম বদল করেন। একটি সিম রাখেন না। আর সবচেয়ে মজার ব্যাপার হল যে, তারেক জিয়াকে কোন প্রয়োজনে জরুরি কাজে ফোন করে কেউ কখনো পায় না। তারেক জিয়ার যখন প্রয়োজন আছে তখনই তিনি ফোনে যুক্ত হন। তারেক জিয়ার হোয়াটসঅ্যাপ এবং ভাইবারের নাম্বারগুলোরও একই অবস্থা। বিএনপির একজন নেতা বলেছেন যে, এক দিন অন্তর অন্তর তার ফোন নাম্বার বদল হয় এবং সিম বদল করেই তিনি সকলের সঙ্গে যোগাযোগ করেন।

বিএনপির মধ্যেই প্রশ্ন উঠেছে যে, কোনটা আসল তারেক জিয়া, কোনটা নকল তারেক জিয়া সেটি কিভাবে বোঝা যাবে। এর উত্তরে বিএনপির একজন নেতা বলেছেন যে, তারেক জিয়ার কণ্ঠস্বর শুনে তাকে বুঝতে হবে। তবে অনেকে সময় যে তারেকের নাম করে কেউ ফোন করতে পারেন এই বিষয়টিও মাথায় থাকে। এজন্যই বিএনপির নেতারা যখন তারেক জিয়ার ফোন ধরেন তখন তার কণ্ঠস্বরটি বোঝার চেষ্টা করেন। অবশ্য টেলিফোনের বাইরে তারেক জিয়া মাঝে মাঝে স্কাইপে যুক্ত হন। তখন তার চেহারাও নেতাকর্মীরা দেখতে পারেন। কিন্তু বিএনপির মধ্যে এখন প্রশ্ন উঠেছে এরকম একটি টেলিফোন সুনির্দিষ্ট নাম্বার ছাড়া পলাতক এবং গডফাদারদের মধ্যেও ভৌতিক নাম্বার এবং বারবার নাম্বার বদল করে বিএনপির মতো একটি রাজনৈতিক দল কি চালানো সম্ভব? আর এই তারেকের ফোন নিয়েই এখন বিএনপির মধ্যে নানা বিপত্তি চলছে।

বিএনপির একজন নেতা বললেন যে, লন্ডন থেকে ফোন এসেছিল। নাম্বার দেখে তিনি তারেকের ফোন মনে করে ফোনটা তাড়াতাড়ি করে ধরলেন। পরে জানা গেল যে না, এটি লন্ডনের একজন বিএনপি কর্মীর ফোন। তিনি একটা কমিটিতে ঢোকার জন্য তারেক জিয়াকে অনুরোধ করার জন্য ওই নেতার কাছে তদবির করছিলেন। এরকম বিপত্তিতে পড়েন অনেকেই। তারেক জিয়ার ফোন এখন বিএনপির আরেক বিড়ম্বনার নাম হয়ে দাঁড়িয়েছে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি