বুধবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১



করোনাকালে রাজপথে নামতে রাজি নন বিএনপি নেতারা


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
12.08.2021

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর

নিউজ ডেস্ক : করোনার ভয়াবহতা মোকাবিলায় কয়েক দফা লকডাউনের বিধি নিষেধ অবশেষে কাটলো। ১১ আগস্ট শেষ হলো লকডাউন। আবারও পুরোদমে ব্যস্ততা ফিরছে সবখানে। তবে এখনো রাজনীতিতে ফিরতে রাজি নন বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির নেতারা। তারা বলছেন, লকডাউন শেষ হবার মানে এই নয় যে করোনায় আক্রমণ হবে না। করোনা রয়েছে আশেপাশে। ফলে সহসা ঘর থেকে বের হবার কোনো কারণ নেই।

এ বিষয়ে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেন, দেশে করোনার প্রভাব এখনো বিরাজমান। যদিও দেশের মানুষের অর্থনৈতিক স্বার্থ বিবেচনায় এ মুহূর্তে সব কিছু খুলে দেয়া হয়েছে, তবে আমরা এখনো প্রস্তুত নই। সময় হলে পূর্ণাঙ্গ প্রস্তুতি নিয়ে আমরা ঘর থেকে বের হবো। তখন হবে কঠোর আন্দোলন।

তবে লকডাউন খুলে দেয়ার পরও বিএনপির ঘরে লুকিয়ে থাকাকে হাস্যকর দাবি করে তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, প্রথম থেকেই করোনার টিকা নিয়ে সমালোচনাকারী বিএনপি এখনো যে অপপ্রচারে লিপ্ত, তা জনস্বার্থবিরোধী এবং দেশের আইন অনুযায়ী শাস্তিযোগ্য অপরাধ। এক দিকে তারা টিকা বিরোধী প্রচারণা চালাবে, অপরদিকে নিজেরাও ঘর থেকে বের হবে না। বিষয়টি হাস্যকর, ভণ্ডামির চরম পর্যায় পৌঁছেছে বিএনপি। বাস্তবতা হচ্ছে তারা যদিও করোনার দোহাই দিয়ে ঘর থেকে বের হচ্ছে না, আসল বিষয় হচ্ছে তাদের আন্দোলন করার কোনো শক্তি নেই।

তবে হাছান মাহমুদের কথার সমালোচনা করে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, বিএনপি টিকার সমালোচনা করেছে ঠিকি, তবে সেটা জনসাধারণের সুবিধার জন্য। হতে পারে, আমরা ক্ষমতায় থাকলে হয়তো এতো টিকার ব্যবস্থা করতে পারতাম না। কিন্তু বিরোধী দলে থাকলে তো সমালোচনা করতেই হবে। এছাড়া আন্দোলন করার শক্তি আমাদের আছে। যদিও বিগত বছরগুলোতে কিছু ভুলের জন্য আমরা আন্দোলন করতে ব্যর্থ হয়েছি, তবে আগামীতে আমরা সফল হবো। লকডাউন শেষ হয়েছে, আমরা আন্দোলনের প্রস্তুতি নিচ্ছি। অতিসত্বর রাজপথে দেখা যাবে বিএনপিকে। যেকোনো মুহূর্তে ঘুরে দাঁড়াবে বিএনপি। এখন শুধু উপযুক্ত সময়ের অপেক্ষা।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি