বুধবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১



জঙ্গিবাদের গডফাদারদের চিনে রাখুন


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
20.08.2021

নিউজ ডেস্ক: সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির এক স্বপ্ন নিয়ে মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে ১৯৭১ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় বাংলাদেশ। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট পর্যন্ত সেই স্বপ্নের পথেই হাঁটছিল দেশ। তবে জাতির পিতাকে নির্মমভাবে হত্যার পর বাংলাদেশে জঙ্গিবাদের উত্থান ঘটে। এ কাজে যারা বিভিন্ন সময়ে মদদ দিয়েছেন, আশ্রয়-প্রশ্রয় দিয়েছেন, তারাই আজ আবার গণতন্ত্রের লেবাসে রাজনীতি করছে। এক নজরে জেনে নিই এমন কয়েকজন জঙ্গিবাদের পৃষ্ঠপোষকদের নাম:

জিয়াউর রহমান

জিয়াউর রহমান ছিলেন জঙ্গিদের সবচেয়ে বড় গডফাদার। তিনি বাংলাদেশের সংবিধান থেকে ধর্মনিরপেক্ষতাকে উপড়ে ফেলেছিলেন। সাম্প্রদায়িক রাজনীতি শুরু করার অনুমতি দিয়েছিলেন এবং ৭১ এর যুদ্ধাপরাধীদের সংগঠন জামায়াতকে তিনি রাজনীতি করার সুযোগ দিয়েছিলেন। এখান থেকেই বাংলাদেশের জঙ্গিবাদের উত্থান পর্ব বলে মনে করেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

বেগম খালেদা জিয়া

বেগম খালেদা জিয়া ছিলেন বাংলাদেশে জঙ্গিবাদের আরেক পৃষ্ঠপোষক এবং তিনি জঙ্গিদের লালনপালন করেছিলেন তার রাজনৈতিক মসনদ পাকাপোক্ত করার জন্য। বিভিন্ন জঙ্গি সংগঠনের সঙ্গে তিনি সম্পর্ক গড়েছিলেন এবং ২০০১ সালের আগে এসেই সম্পর্ক প্রকাশ্য হয়ে যায়। একাধিক জঙ্গি সংগঠনের সঙ্গে বিএনপির প্রকাশ্য সম্পর্ক ছিল। ২০০১ সালে বিএনপি ক্ষমতায় আসার পর ২০ ট্রাক অস্ত্র আসা বা একুশে আগস্টের গ্রেনেড হামলা-সবই জঙ্গি যোগসাজশে হয়েছে বলে তথ্যপ্রমাণ পাওয়া যায়। বাংলাদেশে মূলধারার রাজনীতিতে জঙ্গিবাদকে ঠাঁই দেওয়ার মূল কাজটি করেছিলেন বেগম খালেদা জিয়া।

তারেক রহমান

বাংলাদেশে এখনো যে সীমিত পর্যায়ে জঙ্গি তৎপরতা চলছে এবং জঙ্গিবাদকে পৃষ্ঠপোষকতা করা হচ্ছে তার সবচেয়ে বড় গডফাদার তারেক জিয়া। তারেক রহমান নিজে সরাসরিভাবে জঙ্গিবাদের সঙ্গে যুক্ত এরকম বহু তথ্যপ্রমাণ পাওয়া গেছে, একাধিক জঙ্গি তৎপরতার সঙ্গে তার সংযোগ পাওয়া গেছে। বাংলাদেশে যতগুলো জঙ্গি সংগঠন আছে তাদের অর্থ সাহায্য দেওয়া এবং তাদেরকে ব্যবহার করার ক্ষেত্রে তারেক রহমানের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা আছে বলে অনেকে মনে করেন। বিশেষ করে ২১শে আগস্ট গ্রেনেড হামলার সময় তিনি পাকিস্তানের জঙ্গি সংগঠনকে ব্যবহার করেছিলেন।

ভারতীয় বিচ্ছিন্নতাবাদীদের বাংলাদেশের ভূমি ব্যবহার করতে দেওয়া এবং তাদের বাংলাদেশে কাজ করতে দেওয়ার অনুমতি দেয়ার ক্ষেত্রেও লন্ডনে পলাতক বিএনপির এই ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান কাজ করতেন। এখনো বাংলাদেশের বিভিন্ন জঙ্গি সংগঠনের সঙ্গে তারেক রহমানের যোগাযোগ রয়েছে বলে মনে করেন বিশিষ্টজনরা।

যুদ্ধাপরাধীদের সন্তানরা

৭১ এর মানবতাবিরোধী যুদ্ধাপরাধীদের সন্তানরা বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে এবং এরা বিভিন্ন জঙ্গি সংগঠনকে পৃষ্ঠপোষকতা ও তার নেতৃত্ব দিচ্ছে। গোলাম আযমের পুত্র, মীর কাশেমের পুত্র, সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর পুত্র, মতিউর রহমান নিজামীর সন্তানরা- প্রত্যেকেই জঙ্গিবাদকে পৃষ্ঠপোষকতা দিচ্ছে এবং জঙ্গিবাদের সঙ্গে তাদের প্রকাশ্য সম্পর্ক রয়েছে বলেও গুঞ্জন রয়েছে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি