বুধবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১
  • প্রচ্ছদ » other important » তালেবানে অনুপ্রাণিত হচ্ছে জামায়াত, সন্দেহ যুক্তরাষ্ট্রের



তালেবানে অনুপ্রাণিত হচ্ছে জামায়াত, সন্দেহ যুক্তরাষ্ট্রের


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
22.08.2021

নিউজ ডেস্ক : বাংলাদেশের তালেবানের অস্তিত্ব না থাকলেও তাদের মতাদর্শের লোক রয়েছে। আর সেই মতাদর্শের মানুষগুলো দেশে বড়সড় সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালাতে পারে বলে সন্দেহ প্রকাশ করছে যুক্তরাষ্ট্রের স্টেট ডিপার্টমেন্টে অভিযোগ করেছেন দেশটির তিন কংগ্রেসম্যান। তারা বলছেন, জামায়াতে ইসলামী নতুন করে তালেবান দ্বারা অনুপ্রাণিত হয়ে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে অর্থায়ন করছে। এরইমধ্যে বিষয়টি তদন্তেরও আবেদন জানানো হয়েছে বলে জানা গেছে।

জামায়াতের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসী কাজে অর্থায়নের অভিযোগ তোলা এই তিন কংগ্রেসম্যান হচ্ছেন যুক্তরাষ্ট্রের ইন্ডিয়ানা অঙ্গরাজ্যের জিম ব্যাংকস, টেনেসির চাক ফ্লেইসমান ও টেক্সাসের র‌্যান্ডি ওয়েবার। তাদের অভিযোগ, জামায়াত ও এর সঙ্গে যুক্ত অঙ্গ সংগঠনগুলো শুধু দক্ষিণ এশিয়াতেই তাদের তৎপরতা চালাচ্ছে না বরং এশিয়া ও ইউরোপের অন্যান্য অঞ্চলে, এমনকি যুক্তরাষ্ট্রেও তাদের কার্যক্রম সম্প্রসারিত করেছে।

এই তিন কংগ্রেসম্যান গত ১৮ই আগস্ট স্টেট ডিপার্টমেন্টের কাউন্টার টেরোরিজম কো-অর্ডিনেটর নাথান সেলসের কাছে জামায়াতের সন্ত্রাসী অর্থায়নের যথেষ্ট তথ্য-প্রমাণসহ একটি চিঠি পাঠিয়েছেন। চিঠিতে তারা বলেছেন, হেল্পিং হ্যান্ডস ফর রিলিফ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট (এইচএইচআরডি) এবং ইসলামিক সার্কেল অফ নর্থ আমেরিকা (ইসনা) জামায়াতের সঙ্গে সম্পর্কিত।

চিঠিতে বলা হয়, ‘কোনও সন্দেহ নেই জামায়াতের আন্তর্জাতিক নেটওয়ার্কের একটি অংশ হচ্ছে ইসনা এবং এইচএইচআরডি। হেল্পিং হ্যান্ডস ফর রিলিফ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট এবং ইসনা যে সরাসরি সন্ত্রাসী অর্থায়নে জড়িত এর স্বপক্ষে প্রচুর প্রমাণ আছে। এবং তাদের সঙ্গে তালেবানের ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে।

জামায়াতের ইতিহাস বর্ণনা করতে গিয়ে কংগ্রেসম্যানরা বলেন, ১৯৭১ সালে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময়ে পাকিস্তান ইন্টেলিজেন্সের প্যারামিলিটারি হিসাবে জামায়াত কাজ করতো এবং অনেক বাংলাদেশি মুক্তিযোদ্ধা ও বেসামরিক মানুষকে হত্যা করেছে। ২০১৫ সালে জামায়াতের ছাত্র সংগঠন ইসলামী ছাত্র শিবির তৃতীয় কুখ্যাত সহিংস আর্মড গ্রুপ হিসেবে পরিচিতি পায়।’

তথ্য-প্রমাণ দেখিয়ে কংগ্রেসম্যানরা বলেন, ২০১৭ সালে পাকিস্তানে একটি কনফারেন্সের আয়োজন করে হেল্পিং হ্যান্ডস ফর রিলিফ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট যেখানে ফালাহ-ই-ইনসানিয়াত ফাউন্ডেশন ও আল-খিদমত নামক দুটি সংস্থা আয়োজনে সরাসরি সহায়তা করে, যে সহায়তার সবটুকু অর্থ তালেবানদের কোষাগারে জমা পড়ে। এরমধ্যে জামায়াতের দান-খয়রাতকারী প্রধান শাখা সংগঠন হচ্ছে আল-খিদমত।

চিঠিতে বলা হয়, ‘২০১৬ সালে ফালাহ-ই-ইনসানিয়াত ফাউন্ডেশনকে যুক্তরাষ্ট্রের অর্থ মন্ত্রণালয় সন্ত্রাসী সংগঠন হিসাবে চিহ্নিত করেছে। এছাড়া আল খিদমত আরেকটি সংগঠন হিজব-উল-মুজাহেদিনকে সাহায্য করে থাকে এবং মুজাহিদিনকে যুক্তরাষ্ট্র সন্ত্রাসী সংগঠন হিসাবে চিহ্নিত করেছে।’

শুধু তাই নয় হেল্পিং হ্যান্ডস ফর রিলিফ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট তার ২০১৭ সালের বার্ষিক রিপোর্টে উল্লেখ করেছে যে আল-কায়দার ২১৪টি প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছে সংস্থাটি।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি