মঙ্গলবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১



বারবার খালেদা জিয়াকে টার্গেট করছেন তারেক-শর্মিলা


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
24.08.2021

নিউজ ডেস্ক : বেগম জিয়ার বিপুল পরিমাণ সম্পদ ও বিদেশে বিনিয়োগকৃত অর্থের ভাগাভাগির হিসেব নিয়ে ভিন্ন রকম এক পারিবারিক দ্বন্দ্বের সৃষ্টি হয়েছে। যার বলি হচ্ছেন বিএনপি নেত্রী। তারেক রহমান ও প্রয়াত আরাফাত রহমান কোকোর স্ত্রী শর্মিলার রাহমানের দ্বন্দ্বের ফায়সালা না হওয়ায় বেগম জিয়ার মুক্তি নিয়ে কিছু করতে পারছেন না মির্জা ফখরুল ও আইনজীবীরা।

লন্ডনভিত্তিক একাধিক দায়িত্বশীল সূত্রের বরাতে বেগম জিয়ার অর্থ-সম্পদের ভাগাভাগির দ্বন্দ্বে মুক্তির জটিলতা বিষয়ক গুরুত্বপূর্ণ তথ্য জানা গেছে।

লন্ডনে তারেক রহমানের বিষয়ে খোঁজ-খবর রাখে এমন একটি সূত্রের বরাতে জানা গেছে, বেগম জিয়ার মুক্তি নিয়ে যে জটিলতা সৃষ্টি হয়েছে সেটি লন্ডন ও মালয়েশিয়া থেকে সৃষ্টি করা হয়েছে। এর নেপথ্যের কারণ হলো বেগম জিয়ার দেশ ও বিদেশের স্থাবর ও অস্থাবর সম্পত্তির মালিকানা নিয়ে তারেক রহমান ও কোকোর স্ত্রী শর্মিলার দ্বন্দ্ব। কারণ দেশ ও বিদেশে বেগম জিয়ার কয়েক হাজার কোটি টাকার সম্পদ ও বিনিয়োগ রয়েছে। তাই তারেক চান জামিন ও প্যারোলের মুক্তি নিয়ে বিএনপিকে ধাঁধাঁয় ফেলে রাখা। বেগম জিয়ার কারাবাসে থাকলে তার বড় সন্তান হিসেবে নিজেকে দাবি করে তারেক যাবতীয় সম্পদ কুক্ষিগত করতে চান।

সূত্র বলছে, তারেক নিজের আপন ছোট ভাই আরাফাত রহমানের পরিবারকে বঞ্চিত করে সম্পদ দখল এবং ভোগ করতেই বেশ আগ্রহী। বেগম জিয়ার মুক্তির বিষয়ে তেমন আন্তরিক নন। যার কারণে তারেক বিএনপি নেতাদের বেগম জিয়াকে জামিনে মুক্ত করার কথা বলে আদালত পাড়ায় চক্কর খেতে ব্যস্ত রেখেছেন। কারণ তারেক নিজেও জানেন বেগম জিয়ার যে অপরাধ তাতে জামিন পাওয়ার সম্ভাবনা কম। তাই বেগম জিয়া কারাগারে থাকলে তার অনুপস্থিতিতে সম্পদের মালিকানা দখল করা সহজ হবে, এমনটাই মনে করেন তারেক। এদিকে তারেক রহমানের এমন কুমতলবের বিষয়ে আঁচ পেয়েই যতদ্রুত সম্ভব বেগম জিয়াকে বুঝিয়ে প্যারোলে মুক্তি নিয়ে তাকে লন্ডনে নিয়ে আসতে চান শর্মিলা রহমান। লন্ডন চিকিৎসার পাশাপাশি বেগম জিয়াকে তার বয়স বিবেচনা সম্পদের সুষ্ঠু বণ্টনের জন্য বোঝাতে চান শর্মিলা। কারণ এর আগে সম্পত্তি দেখভালের নাম করে আরাফাত রহমানের কয়েক’শ কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন তারেক। যা অনেক চেষ্টা করে এমনকি বেগম জিয়ার কাছে নালিশ দিয়েও ফেরত পাননি কোকোপত্নী। তাই এবার অন্তত সেই ভুল করতে চান না তিনি। সম্পদের ন্যায্য হিস্যা পেতে তিনি বিএনপি নেতাদের প্যারোলে বেগম জিয়াকে মুক্ত করানোর জন্য অনুরোধ করেছেন।

একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র বলছে যে, সৌদি আরবে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে বিনিয়োগের নামে বেগম খালেদা জিয়ার প্রায় সাড়ে পাঁচশো কোটি টাকার সম্পদ রয়েছে। এছাড়া সংযুক্ত আরব আমিরাতে রয়েছে প্রায় আরো সাড়ে তিনশো কোটি টাকার সম্পদ। সিঙ্গাপুরে বেগম খালেদা জিয়ার নামে একশ কোটি টাকার সম্পদ রয়েছে। মালয়েশিয়াতেও রয়েছে বেগম খালেদা জিয়ার সম্পদ। সব মিলিয়ে বেগম জিয়ার কয়েক হাজার কোটি টাকা রয়েছে। আর সম্পদের ভাগবাটোয়ারার টানাপড়েনের কারণেই বেগম জিয়ার মুক্তি বিলম্বিত করছে তার পরিবারের দুটি পক্ষ।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি