মঙ্গলবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১
  • প্রচ্ছদ » Lead 1 » আবারও মদের নেশায় বুঁদ হয়েছেন খালেদা, আতঙ্কে ‘প্রিয়জনরা’!



আবারও মদের নেশায় বুঁদ হয়েছেন খালেদা, আতঙ্কে ‘প্রিয়জনরা’!


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
26.08.2021

নিউজ ডেস্ক: কথায় আছে, স্বভাব যায় না মরলে। বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া সেটি আবারও প্রমাণ করলেন। জানা গেলো, করোনা থেকে সেরে উঠেই তিনি পুনরায় শুরু করেছেন বেপরোয়া জীবনযাপন। দ্বিতীয় ডোজ টিকা নেয়ার পর বাসায় ঘনিষ্ঠজনদের সঙ্গে স্বাস্থ্যবিধির তোয়াক্কা না করেই দীর্ঘক্ষণ মেতেছেন মদের পার্টিতে। রাতভর মদ খেয়ে শারীরিকভাবে বিএনপি নেত্রী বেশ অসুস্থও হয়ে পড়েছেন বলে একটি গোপন সূত্রে জানা গেছে।

তথ্যসূত্র বলছে, গত বছরের ২৫ মার্চ সরকারের মহানুভবতায় কারামুক্তির পর মাঝে কিছুদিন বিরতি দিলেও আবারও মদ খাওয়া শুরু করেছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। আর খাওয়ার পরিমাণ এতোটাই বাড়িয়ে দিয়েছেন যে, যা দেখে রীতিমত আতঙ্কে রয়েছেন তার কাছের মানুষজন। সবার মুখেই এক কথা, এই বয়সে এসে কী শুরু করেছেন খালেদা? তার কি ভয়-ডর বলতে কিছুই নেই?

তবে খালেদার ঘনিষ্ঠজন সূত্রে জানা গেছে, দলের নেতৃত্ব নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে তারেক রহমান ও খালেদার মধ্যে নীরব রেষারেষি চলে আসছে। যা এখন ভয়ঙ্কর রূপ নিয়েছে। আর বিষয়টি প্রকাশ্য হয়েছে খালেদার কারামুক্তির পর। বিএনপি নেত্রী বুঝতে পেরেছেন, তাকে ‘মাইনাস’ করে তারেক আলাদা এক সাম্রাজ্য গড়ে তুলেছেন, যেখানে তিনিই সর্বসবা। সে কারণে ইচ্ছেখুশি মত তিনি বিভিন্ন কমিটি গঠন থেকে শুরু করে দলীয় সিদ্ধান্ত পর্যন্ত নিয়ে নিচ্ছেন। কিন্তু তা ঘুণাক্ষরেও তা দলীয় নেত্রী হিসেবে খালেদাকে জানাচ্ছেন না। বিষয়টি দারুণভাবে পীড়া দিচ্ছে বিএনপির শীর্ষ ক্ষমতাধর এই ব্যক্তিকে। এ কারণে ‘সাময়িকভাবে’ বেদনা ভুলতে তিনি রাতভর খাচ্ছেন মদ। বিদেশি সব ব্র্যান্ডের সেসব মদ ফুরিয়ে গেলে তিনি গৃহকর্মী ফাতেমার উপর চড়াও হচ্ছেন বলেও সূত্রটি নিশ্চিত করেছে।

বাংলানিউজ ব্যাংকের সঙ্গে আলাপনে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির স্থায়ী কমিটির এক সদস্য বলেন, এর আগে একবার ম্যাডামের (খালেদা জিয়া) পাকস্থলীতে ক্যান্সার ধরা পরে। চিকিৎসকরা বলেন, অধিক মদ্যপানই তার পাকস্থলী ক্যান্সারের মূল কারণ। ব্যাপক সমালোচনার পরে সে সময় বিষয়টি সবার থেকে আড়াল করা হয়। এ কারণে দলের সিনিয়র কয়েকজন ছাড়া, অধিকাংশরাই ম্যাডামের (খালেদা জিয়া) ক্যান্সারের ব্যাপারে কিছু জানেন না।

এ বিষয়ে দেশের রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, কিছু মানুষের স্বভাব আমৃত্যু পরিবর্তন হয় না। তাদের মধ্যে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া অন্যতম। সে কারণে তিনি জীবন সায়াহ্নে এসেও মেতেছেন মদ আর রাতভর পার্টিতে। আর তার এই বেপরোয়া চলাফেরায় তারেক রহমান মনে মনে খুশি হলেও নীরবে কাঁদছেন খালেদাপন্থীরা। যাদেরকে ঠোঁট বাঁকিয়ে তারেক বলেন, খালেদার প্রিয়জন। অবশ্য তাদের এই ‘মায়া কান্না’র পেছনে কারণও রয়েছে। কারণ, খালেদার বদৌলতেই তারা দলে টিকে আছেন। করছেন দলীয় রাজনীতি।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি