মঙ্গলবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১



দলের ভেতরই চাপে রয়েছেন রিজভী


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
01.09.2021

লকডাউন শেষ হওয়ার পর হারানো দফতরের দায়িত্ব ফিরে পেতে আপ্রাণ চেষ্টা করে যাচ্ছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। আর এ কারণেই সম্প্রতি খুব ভোরে একাই আরাফাত রহমান কোকোর কবর জিয়ারত করে কেন্দ্রের দৃষ্টি আকর্ষণ করার চেষ্টা করেছেন তিনি। এছাড়া ২০১৯ সালে হঠাৎ করেই ভোর বেলা অযথা ঝটিকা মিছিল করে আলোচনার জন্ম দেন রিজভী।

এবার ঝটিকা মিছিল করতে নেতাকর্মীদের চাপ সৃষ্টি, ভাড়াটে কর্মীদের নিয়ে মিছিল করা এবং মিছিল করে নেতাকর্মীদের পুলিশ-প্রশাসনের মুখে ফেলে চম্পট দেওয়ার ঘটনায় দলীয় হাইকমান্ডের রোষানলে পড়েছেন বিএনপির এ সিনিয়র নেতা।

বিশ্বস্ত সূত্রে জানা গেছে, রিজভীর বিরুদ্ধে খালেদা জিয়ার মুক্তি আদায়সহ অন্যান্য ইস্যুতে প্রায়ই গভীর রাতে পোস্টারিং করা, ২০ থেকে ৩০ জন নিয়ে ভোর বেলায় ঝটিকা মিছিল করা, ভাড়াটিয়া কর্মীদের নিয়ে মিছিল করে তাদের পাওনা পরিশোধ না করার মতো গুরুতর অভিযোগ উঠেছে।

এদিকে রিজভী আহমেদের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএনপির এক স্থায়ী কমিটির সদস্য বলেন, রিজভী আমার জুনিয়র নেতা। তার ব্যাপারে কথা বলাটা আমার রাজনৈতিক প্রটোকলের ভেতর পড়ে না। তবে যেহেতু তার কিছু কর্মকাণ্ড নিয়ে সমালোচনা হচ্ছে, তাই কথা বলতে বাধ্য হচ্ছি। রিজভী আসলে নিজেকে ‘অনলি ওয়ান ডেডিকেটেড পার্সন ফর বিএনপি’ ফর্মুলায় যোগ্য নেতা হিসেবে জাহির করতে গিয়ে বিপত্তিগুলো ডেকে আনছেন।

তিনি আরো বলেন, সত্যি বলতে রিজভী আহমেদের ঝটিকা মিছিল দেখে অনেকেই নানা সমালোচনা করেছেন। কথা হচ্ছে জনগণের দৃষ্টি আকর্ষণ না করে ভোর ৬টায় মিছিল বের করে কী জাহির করতে চান রিজভী। এ সময় রাস্তায় কাকে দেখাতে তিনি মিছিল করেন। এছাড়া মিছিলগুলো স্বাভাবিক হলেও মানা যেতো।

কিন্তু জোর করে নেতাদের ধরে নিয়ে মিছিল করা, ভাড়াটে কর্মীদের অর্থ পরিশোধ না করা এবং মিছিল থেকে হঠাৎ উধাও হয়ে কর্মীদের বিপদের মুখে ফেলে ভালো করতে গিয়ে উল্টো সমালোচনায় নিজেকে জড়াচ্ছেন রিজভী। এগুলো ঠিক নয়। আমার মনে হয় রিজভীর নিয়মিত ঘুম হয় না বলে তিনি তার ২০ জন সাঙ্গোপাঙ্গকে নিয়ে হঠাৎ করেই ভোরে মিছিল বের করে থাকেন!



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি