মঙ্গলবার ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১
  • প্রচ্ছদ » other important » যে আমলে বাংলাদেশে সর্বপ্রথম চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজি শুরু হয়



যে আমলে বাংলাদেশে সর্বপ্রথম চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজি শুরু হয়


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
07.09.2021

নিউজ ডেস্ক : স্বাধীন বাংলাদেশের ইতিহাসে জিয়াউর রহমানের শাসনামল ছিল এক ভয়ংকর অধ্যায়। সে সময়ে আকণ্ঠ দুর্নীতিতে নিমজ্জিত ছিল বাংলাদেশ। বিভিন্ন পন্থায় স্বৈরশাসক জিয়া তরুণদের দুর্বৃত্তায়নের দিকে ধাবিত করেন বলে উল্লেখ করেছেন পাকিস্তানের সাংবাদিক ও লেখক অ্যান্থনি মাসকারেনহাস। ‘বাংলাদেশ: অ্যা লেগাসি অব ব্লাড’ বইতে জিয়ার শাসনামলকে ‘অমানিশার সরকার’ বলেও উল্লেখ করেছেন অ্যান্থনি।

জিয়া রাষ্ট্রীয় টাকার বিপুল অপচয় ঘটিয়ে সদ্য স্বাধীন বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক কাঠামোর বিভিন্ন স্তরে নানা কৌশলে দুর্বৃত্তায়নের সংস্কৃতি প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। বঙ্গবন্ধুর আমলে যেখানে প্রতিরক্ষা খাতে ব্যয় হতো মূল বাজেট বরাদ্দের ১৩ শতাংশ, সেখানে ১৯৭৮ সালে প্রেসিডেন্ট জিয়ার আমলে তা দাঁড়ায় ২৯ শতাংশ বলেও উল্লেখ করেছেন অ্যান্থনি।

জিয়া দেশের যুবকদের দুর্নীতিগ্রস্ত করতে যুব কমপ্লেক্সের নামে দেশজুড়ে উন্মুক্ত-চাঁদাবাজির প্রচলন করেন। মাত্র তিন বছরে বাংলাদেশে ৩ হাজার ৬৭০টি যুব কমপ্লেক্স করা হয়। এই যুব কমপ্লেক্সের আয়ের উৎস ছিল দেশের হাট-বাজার ও মেলা থেকে আদায়কৃত টাকা।

১৯৭৯-৮০ এবং ১৯৮০-৮১ এই দুই অর্থবছরে বাজার ও মেলা থেকে আয় হয়েছিল ১২ কোটি ৭৪ লাখ ৮৭ হাজার ২০০ টাকা। এসব টাকা গেছে যুব কমপ্লেক্সের অন্তর্ভুক্ত সমবায় সমিতির পাণ্ডাদের পকেটে। জিয়া তখন চোখ বন্ধ করে ছিলেন, কারণ তারাই তার রাজনৈতিক সমর্থক বলে উল্লেখ করেন অ্যান্থনি।

বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশে পাকিস্তানিদের যেসব সম্পত্তি জাতীয়করণ করেছিলেন, তা জিয়া তাদের ফিরিয়ে দেন। যাদের ফিরিয়ে দিতে পারেননি তাদের ক্ষতিপূরণ দেন। জিয়া মদ, জুয়া ও পতিতাবৃত্তির লাইসেন্স প্রদান করে সমাজ নষ্টের বিষবৃক্ষ রোপণ করেন। তখনকার প্রজন্মকে দুর্নীতিগ্রস্ত করে তুলেছিলেন প্রেসিডেন্ট জিয়া।

গ্রাম্য যুবকদের তিনি হাট-বাজারের ইজারার অধিকার দিয়ে দলীয় ক্যাডারে পরিণত করেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মেধাবী ছাত্রদের নষ্ট রাজনীতির পঙ্কিল পথে টেনে আনেন। এসব মেধাবী ছাত্ররা লেখাপড়া ভুলে সন্ত্রাস, চাঁদাবাজি থেকে শুরু করে টেন্ডারবাজি, তদবিরবাজি, হলের সিট ভাড়া ইত্যাদি বিভিন্ন অপকর্মে লিপ্ত হয় বলেও উল্লেখ করেন অ্যান্থনি মাসকারেনহাস।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি