বুধবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১
  • প্রচ্ছদ » Lead 1 » নির্বাচনের আগে জামায়াতকে পাশে চায় তারেক



নির্বাচনের আগে জামায়াতকে পাশে চায় তারেক


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
12.09.2021

নিউজ ডেস্ক: রাজনৈতিক দলগুলো দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে শুরু করেছে। কিন্তু বিএনপি প্রস্তুতি হিসেবে আন্দোলনকে প্রাধান্য দিতে চাইছে। বারবার আন্দোলন এবং সরকারি দলের রাজনৈতিক কৌশলে ব্যর্থ হয়ে দলটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যন তারেক রহমান জামায়াত ইসলামকে পাশে চেয়েছেন। সাড়াও দিয়েছে জামায়াত।

বিএনপির একটি নির্ভরযোগ্য সুত্র বাংলা নিউজ ব্যাংককে জানায়, দীর্ঘদিন ধরে কঠোর আন্দোলনে যাবার কথা বললেও নেতাদের মধ্যে ঐক্য না থাকায় বিএনপির আন্দোলন এখন রসিকতায় পরিণত হয়েছে। আন্দোলনের কথা বললেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ট্রলের শিকার হচ্ছেন দলটির নেতাকর্মীরা। সেখান থেকে বেড়িয়ে আসতে নির্বাচনের আগে জামায়াতকে সাথে নিয়ে দেশে বড় ধরণের অরাজগতা সৃষ্টি করে সরকারকে চাপে ফেলতে চায় তারেক রহমান।

সূত্রটি আরো জানায়, জামায়াত নেতাদের সাথে তারেক রহমানের একাধিক বৈঠকও সম্পন্ন হয়েছ। সরকারকে চাপে ফেলতে নাশকতার পরিকল্পনা নিয়ে কাজও শুরু করেছে বিএনপি-জামায়াত।

মহানগর বিএনপি নেতা আব্দুল আলীম নকি’র এক ঘনিষ্ট সহযোগির কাছ থেকে বাংলা নিউজ ব্যাংক জানতে পেরেছে যে, তারেক রহমানের সাথে বৈঠকের পর নাশকতার পরিকল্পনা করছিল জামায়াতের নেতারা। ধারণা করা হয়, বসুন্ধরা এলাকা থেকে জামায়াতের সেক্রেটারি জেনারেলসহ শীর্ষপর্যায়ের নয় নেতাকে গ্রেফতারের ঘটনা ঘটে তারেক রহমানের সাথে মিটিংয়ের পর। বিএনপি নেতারই বলছেন- এত অল্পতে দমে যাওয়ার দল জামায়াত নয়।

ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির নির্বাহী সভাপতি শাহরিয়ার কবির বলছেন, জামায়াত শক্তিশালি বলেই বিএনপি বারবার তাদের সরনাপন্ন হয়। তারেকবিরোধী নেতারা মনে করেন বিএনপির অধঃপতনের অন্যতম কারণ জামায়াত। তাই তারা বিভক্ত। আর তারেকের নেতৃত্বে বিএনপি ঘুরে দাঁড়াতে পারছে না বলেই জামায়াতকে কাছে টানছে বিএনপি।

তিনি আরো বলেন, যুদ্ধপরাধের দায়ে দলের আমীরসহ শীর্ষ নেতৃত্বের ফাঁসি কার্যকর হবার পরও দলটি নেতৃত্বের সঙ্কটে পড়েছে এমনটা ভাবা হলেও বাস্তবে তারা আরও সংগঠিত হয়েছে। দ্বিতীয় ও তৃতীয় সারির নেতারাই রাষ্ট্রবিরোধী চক্রান্ত করছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গুজব ছড়িয়ে সরকারের বিরুদ্ধে জনমত সৃষ্টির অপরাজনীতি করে যাচ্ছে। এছাড়াও আন্তর্জাতিক সন্ত্রাসীগোষ্ঠির সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রয়েছে লাহোর কেন্দ্রিক এই দলটির।

জামায়াতের এ ভাতঘুমের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশে নতুন নতুন ইসলামপন্থী দলের উত্থান ঘটেছে। হেফাজতে ইসলাম এদের মধ্যে একটি। ২০১৪ সালের ৫ মে এক তাণ্ডবের মাধ্যমে দেশের রাজনীতিতে এদের এক নরকীয় অভ্যুদয় ঘটে। যেটা জামায়াতেরই আরেক ভার্সন। বর্তমানে দলটি একটি বড় শক্তি হিসেবে দাঁড়িয়েছে। যদিও সাধারণ জনগণ মনে করেছিল যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের পর অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশে ইসলামী দলগুলো সংকুচিত হয়েছে। জনগণের ধারণা ভুল প্রমাণ করে দলগুলো নতুন নতুন ভার্সন নিয়ে সামনে এসেছে। অনেকটা নতুন বোতলে পুরাতন মদের মতো ভিন্ন ভিন্ন কৌশলে নতুন রূপে সংগঠিত হচ্ছে তারা।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি