বুধবার ২২ সেপ্টেম্বর ২০২১
  • প্রচ্ছদ » Lead 2 » জামিনের মেয়াদ বাড়ায় বিদেশ যেতে চান না খালেদা



জামিনের মেয়াদ বাড়ায় বিদেশ যেতে চান না খালেদা


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
12.09.2021

নিউজ ডেস্ক: বিদেশে যেতে হলে বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে প্রথমে জেলে যেতে হবে তাই জামিনের মেয়াদ ৬ মাস বাড়ায় আপাতত বিদেশে যেতে চাচ্ছেন না তিনি। খালেদার পরিবারও তার বিদেশ যাওয়া নিয়ে আলোচনা করতে চান না।

জিয়া পরিবারের একটি সূত্র থেকে বাংলা নিউজ ব্যাংক জানতে পেরেছে, খালেদা জিয়া আর কোনভাবেই জেলে যেতে চান না। জামিনের মেয়াদ শেষের দিকে এলেই তিনি অস্থির হয়ে যান বিদেশে যাবার জন্য। কিন্তু রাষ্ট্রপতির কাছে ক্ষমা চাইতেও রাজি না। তবে এবার বিদেশ যাবার আবেদন করার আগে বলেছিলেন- বিএনপি নিয়েও আমার আগ্রহ নেই, রাজনীতি নিয়েও নেই। আমি দেশে থাকতে চাই না।

আরো জানা যায়, জামিনের মেয়াদ বাড়ায় শান্ত হয়েছেন তিনি। আপাতত বিদেশে যাবার কথা বলছেন না। কারণ বিদেশে যেতে হলে আগে তাকে জেলে যেতে হবে।

এদিকে বিএনপি নেত্রীর স্বজনরা এবার স্থায়ী মুক্তির আবেদনের পাশাপাশি বিদেশ যেতে দেয়ার অনুরোধের বিষয়ে আইনমন্ত্রী মন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক বলেন, যদি এটা করতে হয়, তাহলে যেটা আমি আগেও বলেছি, তাকে আবার জেলে গিয়ে এ আবেদন বাতিল করতে হবে। এরপর আবার নতুন আবেদন করতে হবে। বর্তমান আবেদনে মুক্তির মেয়াদ বাড়ানো ছাড়া আমাদের কিছু করার নেই।

তিনি বলেন, তিনি যে আবেদন করেছেন, তা ফৌজদারি কার্যবিধির ৪০১ ধারার একটি আবেদন হিসেবে গ্রহণ করা হয়েছে। সে আবেদনের প্রেক্ষিতে সরকার নির্বাহী আদেশে তার সাজা স্থগিত রেখে শর্ত সাপেক্ষে মুক্তি দিয়েছে। সেই আবেদনের বিষয়ে তো সিদ্ধান্ত হয়েছে, তাই আবেদনটি নিষ্পত্তি হয়ে গেল। এ অবস্থায় এটাকে পরিবর্তন করার আইন নেই।

প্রসঙ্গত, বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার শর্তহীন মুক্তি চেয়েছেন খালেদা জিয়ার ছোট ভাই শামীম এস্কান্দর। এজন্য তিনি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আবেদন করেছেন। আগামী ১৫ সেপ্টেম্বর খালেদা জিয়ার সাজা স্থগিতের মেয়াদও শেষ হচ্ছে। এ অবস্থায় খালেদা জিয়ার দণ্ড স্থগিত করে দেওয়া মুক্তির মেয়াদ আরও ছয় মাস বাড়ানোর মতামত দিয়েছে আইন মন্ত্রণালয়।

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতির মামলায় ৫ বছরের কারাদণ্ড নিয়ে কারাগারে যাওয়া বেগম খালেদা জিয়ার দণ্ড পরে আপিলে দ্বিগুণ হয়। পরে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় তার হয় ৭ বছরের কারাদণ্ড।

উচ্চ আদালতে জামিন করাতে ব্যর্থ হওয়ার পর খালেদা জিয়ার স্বজনরা গত বছর প্রধানমন্ত্রীর কাছে আবেদন নিয়ে যান। সরকার প্রধানের নির্বাহী আদেশে দণ্ড ছয় মাসের জন্য স্থগিত হওয়ার পর ২০২০ সালের ২৫ মার্চ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতাল থেকে গুলশানের বাসভবন ফিরোজায় ফেরেন খালেদা জিয়া।

এরপর তার সাময়িক মুক্তির মেয়াদ আরও দুই দফায় ছয় মাস করে বাড়ানো হয়েছে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি