বৃহস্পতিবার ২১ অক্টোবর ২০২১



দেশ সুষ্ঠুভাবে চলায় বেকায়দায় বিএনপি


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
23.09.2021

নিউজ ডেস্ক : জনগণ ও নেতা-কর্মীদের আস্থা অর্জনে ব্যর্থ হওয়ায় বিএনপির রাজনীতি রাজপথ থেকে সংকীর্ণ হয়ে নয়াপল্টন, পত্রিকার পাতা ও ফেসবুকেই সীমাবদ্ধ হয়ে পড়েছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সুষ্ঠু ও জনমুখী পরিকল্পনার অভাবে বিএনপির রাজনীতি মুখ থুবড়ে পড়েছে। ভোট বা আন্দোলনের রাজনীতি-কোনটাতেই নেতাকর্মী ও জনগণের সমর্থন পাচ্ছে না বিএনপি। বিভ্রান্ত বিএনপি নির্ধারিত কোন ইস্যুতেই কাজ করতে পারছে না। একসাথে সব করতে গিয়ে গুলিয়ে যাচ্ছে, এতে করে নেতাকর্মীরা হতাশ হয়ে দলবিমুখ হয়ে উঠছেন বলেও মনে করছেন বিশিষ্টজনরা।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে, অন্য যেকোনো সময়ে চেয়ে বর্তমানে দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি খুবই ভালো। এছাড়া দেশের মানুষও এখন যথেষ্ট সচেতন। তাই রাজনীতিতে নিজেদের অশুভ উদ্দেশ্য হাসিল করতে পারছে না বিএনপি। এছাড়া কোন ইস্যুতে রাজনীতি করবে সেটি ঠিক করতে পারছে না বিএনপির হাইকমান্ড। আন্দোলন-সংগ্রামের কোনো পরিকল্পনা নেই বিএনপির। গলাবাজি করে বিএনপিকে টিকিয়ে রাখার চেষ্টা করছেন দলটির কয়েকজন সিনিয়র নেতা। রাজধানী ছাড়া বিএনপির কার্যক্রম দেশের কোনো অঞ্চলে নেই বললেই চলে। রাজনৈতিক দল আদর্শচ্যুত হলেই কর্মীশূন্য হয়ে পড়ে, যা বিএনপিকে দেখলেই প্রমাণ পাওয়া যায়। বিএনপির মূল সমস্যা হলো, দলটির নীতি-নির্ধারকরা বিভ্রান্ত। যার কারণে দলটির তৃণমূল রাজনীতিও রাজপথে বারবার হোঁচট খাচ্ছে।

উদ্দেশ্যহীনভাবে পথচলার কারণে দীর্ঘ সময় পেয়েও নিজেদের ঘর গোছাতে পারেননি দলটির নীতি-নির্ধারকরা। নিজেদের কৌশলের কাছে নিজেরাই পরাজিত হয়েছে। অলস, অকর্মণ্য নেতৃত্বকে এর দায় নিতে হবে। বেগম জিয়ার কাছ থেকে বিএনপির নেতৃত্ব তারেক রহমানের হাতে যাওয়ার পরপরই বিএনপির রাজনৈতিক অধঃপতন ঘটেছে। বলা যায়, বিএনপির রাজনীতি আইসিইউতে চলে গিয়েছে। ভেদাভেদ, আক্রোশ, প্রতিহিংসা ও লোভের রাজনীতির জন্য বিএনপির এমন চরম দুর্গতি হয়েছে বলেও মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। সঠিক নেতা বাছাই করে ব্যর্থতার বৃত্ত থেকে বের হতে না পারলে আগামী এক দশকে বিএনপির রাজনীতি বিলীন হয়ে যেতে পারে বলেও শঙ্কা প্রকাশ করেছেন তারা।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি