রবিবার ৫ ডিসেম্বর ২০২১
  • প্রচ্ছদ » Lead 3 » মির্জা আব্বাসের কারণে রাজনীতিই বাদ দিচ্ছেন সোহেল!



মির্জা আব্বাসের কারণে রাজনীতিই বাদ দিচ্ছেন সোহেল!


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
30.09.2021

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ বিএনপির রাজনীতির পুরো নিয়ন্ত্রণ এখন স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাসের হাতে। দক্ষিণের সর্বশেষ কমিটির গুরুত্বপূর্ণ পদে নিজের অনুসারীদের বসিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বীদের একরকম দলছাড়া করেছেন আব্বাস। এদিকে কমিটি থেকে বাদ পড়ে দক্ষিণ বিএনপিতে একরকম ব্রাত্য হয়ে পড়েছেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব হাবিব উন নবী খান সোহেল। কোনভাবেই আর প্রভাব বিস্তার করতে পারছেন না। ঢাকার রাজনীতিতে প্রভাব হারিয়ে দলেও হয়ে পড়েছেন ব্রাত্য। কোন উপায় না পেয়ে রাজনীতি থেকেই বিদায় নেওয়ার চিন্তা করছেন তিনি।

সূত্র জানায়, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাসের বড় প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন হাবিব উন নবী খান সোহেল। ঢাকা মহনগর বিএনপির রাজনীতিতে সোহেল এবং মির্জা আব্বাসের প্রতিদ্বন্দ্বিতা অনেক দিনের। এর আগে অনেক টাকা খরচ করেও সোহেলকে সরাতে পারেননি মির্জা আব্বাস। কিন্তু গত কমিটিতে কয়েক কোটি টাকার বিনিময়ে তারেক রহমানকে ম্যানেজ করে সোহেলকে হঠান মির্জা আব্বাস। এরপর একে একে সোহেলের অনুসারীদের টাকা দিয়ে কিনে নেন মির্জা আব্বাস। এদিকে সোহেল পদ এবং কর্মী হারিয়ে অনেকটা হতাশ। দলে প্রভাব হারানোর ফলে আগ্রহ হারিয়েছেন রাজনীতিতে। বিএনপির সাম্প্রতিক কোন কর্মসূচিতেই তাকে দেখা যাচ্ছেন না। সোহেলের ঘনিষ্ঠজনরা জানান, মির্জা আব্বাস যেভাবে সব দখল করে নিয়েছেন এতে করে সোহেলের পক্ষে টিকে থাকা কঠিন। সেজন্যই শুধু বিএনপি নয়, রাজনীতিই ছাড়ার চিন্তা করছেন তিনি।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেন, দুইজনের মধ্যে কিছু সমস্যা আছে। তবে এর জন্য রাজনীতি ছাড়ার চিন্তা তো করা উচিত নয়। আমরা বসে সব ভেদাভেদ ঠিক করে ফেলব। এখন দলে বিভক্তি নয়, ঐক্য দরকার।

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, মির্জা আব্বাসের মত কালসাপদের জন্যই বিএনপির আজ করুণ অবস্থা। মির্জা আব্বাস সরকারের এজেন্ট, গুম নিয়ে দলের লোকদের দায়ী করেছে। অথচ তার মত দুমুখো সাপকে শুধুমাত্র টাকার লোভে এত ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে। সোহেলের মত উদ্যমী ছেলেকে বসিয়ে মির্জা আব্বাসকে একক ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে। এতে হতাশা আসবেই। তবে আমি সোহেলকে বলব হতাশ হওয়া যাবে না। আমার মত লড়তে হবে। আমি যে বয়সে টারজানের মত দেয়াল টপকেছি, সে তুলনায় সোহেল ইয়াং ছেলে। তাকে বলব ধৈর্য্য ধরতে।

বিশ্লেষকরা বলেন, মির্জা আব্বাসের টাকার কাছে হেরে গেছেন সোহেল। বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান টাকার পাগল। সুতরাং মির্জা আব্বাসের মত ধনী ব্যবসায়ীর সাথে সোহেল টিকতে পারবেন না সেটা জানাই ছিল। আগামীতে এরকম ঘটনা বিএনপিতে আরও বাড়বে বলে মনে করেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। তাদের মতে বিএনপির মধ্যে হতাশা বাড়তে বাড়তে তরুণরা একে একে দল ছাড়বেন কিংবা নিষ্ক্রিয় হবেন।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি