রবিবার ৫ ডিসেম্বর ২০২১
  • প্রচ্ছদ » Lead 3 » তারেকের নারী কেলেঙ্কারি, ক্ষুব্ধ ব্রিটিশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়



তারেকের নারী কেলেঙ্কারি, ক্ষুব্ধ ব্রিটিশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
03.10.2021

নিউজ ডেস্ক: দেশে সীমাহীন দুর্নীতি ও সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডের দায়ে দণ্ড মাথায় নিয়ে লন্ডনে ফেরারি আসামি হয়ে ঘুরছেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। সেখানেও বেপরোয়া তিনি। গড়ে তুলেছেন হাওয়া ভবনের আদলে ‘ভাইয়া গ্রুপ’। যারা নিয়মিত চাঁদা সংগ্রহ করেন বিএনপি নেতাদের কাছ থেকে। আর তার মনোরঞ্জনের জন্য সন্দরী তরুণীদের তালিকা প্রস্তুত করেন এই গ্রুপ। সেই তালিকা থেকে বাছাই করা সন্দরী তরণীদের নিয়ে প্রতিরাতে রঙ্গলীলায় মেতে উঠেন তারেক।

এবার নিত্য-নতুন নারী নিয়ে ফষ্টিনষ্টি করতে গিয়ে বিপদে পড়েছেন তারেক। পাকিস্তান বংশোদ্ভূত এক ব্রিটিশ তরুণী সরাসরি অভিযোগ করেছে লন্ডনের বাংলাদেশ দূতাবাসে। সেখান থেকে বিষয়টি জানতে পেরেছেন সে দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী লিজ ট্রাস।

হাই কমিশনের একটি নির্ভযোগ্যসূত্রের মাধ্যমে জানা যায়, ২৯ সেপ্টেম্বর (বুধবার) সেই ব্রিটিশ তরুণী বাংলাদেশ হাই কমিশনে তারেক রহমানের বিরুদ্ধে। ওই তরুণী বলেন, মি. তারেক আমার সাথে একা সময় কাটাবেন বলে জানানো হয়েছিল। কিন্তু গভীর রাতে উনি চলে যাবার পর তার তিন সহযোগী আমার সাথে জোরপূর্বক শারীরিক সম্পর্ক করে এবং আমার সম্পূর্ণ টাকাও পরিশোধ করেনি।’

আরো জানা যায়, ব্রিটিশ পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বিষয়টি জানার পর তারেক রহমানের বিষয়ে খোঁজ খবর নেওয়া শুরু করেছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। ইতোমধ্যেই তার উপার্জনহীন বিলাসী জীবন এবং নারী আসক্তির নানা বিষয় ভাবিয়ে তুলেছে তাদের।

দূতাবাস সূত্রে জানা যায়, দীর্ঘদিন ধরেই যুক্তরাজ্য সরকার তারেক রহমানের বিতর্কিত কর্মকাণ্ডে বিব্রত। এই অভিযোগ প্রমাণ হলে এদেশের আইনানুযায়ী তিনি আর এখানে থাকতে পারবেন না। অবশ্যই তাকে সাজা ভোগ করে নিজ দেশে ফেরত পাঠানো হবে।

এ বিষয়ে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, রাষ্ট্র ক্ষমতাকে কাজে লাগিয়ে তারেক রহমান সীমাহীন দুর্নীতি ও লুটপাট করেছেন। ১৫ বছর ধরে যাবজ্জীবন সাজা মাথায় নিয়ে লন্ডনে পলাতক আসামির জীবনযাপন করছেন তিনি। কিন্তু কথায় আছে, কয়লা ধুলে ময়লা যায় না। সভ্য দেশে থাকলেও নিজে সভ্য হয়ে উঠতে পারেনি তারেক। দেশে থাকতেও অনেক নারী কেলেঙ্কারির ঘটনা রয়েছে তার। দেশি-বিদেশি মডেল, নায়িকারা ছিল তার নিত্যরাতের সঙ্গী। গাজীপুরের খোয়াব ভবনের প্রতিটি দেয়ালও হয়তো তার স্বাক্ষ্য দেবে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি