রবিবার ৫ ডিসেম্বর ২০২১



জিয়াউর রহমানের কালো ইতিহাস (পর্ব-০২)


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
06.10.2021

জিয়াউর রহমানের কালো ইতিহাস

নিউজ ডেস্ক: মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে সেক্টর ১ এর সেক্টর কমান্ডার ছিলেন অবসরপ্রাপ্ত মেজর রফিকুল ইসলাম৷ চট্টগ্রাম এবং পার্বত্য চট্টগ্রাম নিয়ে গড়া এই সেক্টরে সাহসিকতার সঙ্গে লড়েছেন এই সেনা। পেয়েছেন ‘বীর উত্তম’ খেতাব। ১৯৭১ সালের ২৪ শে মার্চই বিদ্রোহ শুরু করেন মেজর রফিকুল ইসলাম। সেসময় চট্টগ্রামে ইস্ট পাকিস্তান রাইফেলস এর অ্যাডজুটান্ট হিসেবে কর্মরত ছিলেন তিনি৷ তখনই বুঝে গিয়েছিলেন দেশকে বাঁচাতে চাইলে যুদ্ধের বিকল্প নেই৷ তাই আগেভাগেই চট্টগ্রামের সীমান্ত এলাকার দখল নিতে শুরু করে তাঁর সেনারা৷

আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম ডয়চে ভেলেকে দেয়া সাক্ষাতকারে রফিকুল ইসলাম বলেন, “২৫ মার্চ যুদ্ধ শুরুর পর সঙ্গে থাকা সেনাদের নিয়েই চট্টগ্রাম শহর দখল করে ফেলেন মেজর রফিক৷ কিন্তু অল্পদিনের মধ্যেই চট্টগ্রামের নিয়ন্ত্রণ ছাড়তে হয় তাকে৷ রফিকের দাবি, কোন এক কারণে সেসময় আরেক সেনা কর্মকর্তা মেজর জিয়া সহযোগিতা করেন নি তাকে। তিনি বলেন, মেজর জিয়াকে যখন আমরা মেসেজ পাঠালাম যে আমরা যুদ্ধ শুরু করেছি, তখন এই মেসেজ পেয়ে আগ্রাবাদ এলাকা থেকে তিনি ফেরত আসেন। এসে শহরের যুদ্ধে তিনি অংশগ্রহণ না করে, কোন কারণেই হোক, সেটা আমি জানি না, উনি তাঁর এইট বেঙ্গল রেজিমেন্টের সৈন্য এবং অন্যদের নিয়ে শহর থেকে বেরিয়ে কর্ণফুলী নদী পেরিয়ে কক্সবাজারের দিকে চলে যান।

এই চলে যাওয়া খানিকটা অসহায় করে দেয় মেজর রফিককে। সেই ঘটনা এখনো পরিষ্কারই মনে করতে পারেন তিনি৷ মেজর বলেন, মেজর জিয়া চলে যাওয়ার ফলে আমার কাপ্তাই থেকে যে সৈন্যগুলো আসছিল, ইপিআর এর, এই সৈন্যরা শহরের কাছাকাছি এসে দেখলো যে, বেশকিছু বাঙালি সৈন্য শহর ছেড়ে চলে যাচ্ছে৷ তখন তাদের মধ্যে বিভ্রান্তি সৃষ্টি হল৷ সেদলের ক্যাপ্টেন হারুন তখন শহর ছেড়ে যাওয়া অফিসারদের সঙ্গে কথা বলেন। হারুন আমাকে পরে জানালেন যে, জিয়াউর রহমান সাহেব এবং অন্যরা তাকে বলেছে শহরে কেউ নেই। এজন্য তারা চট্টগ্রাম শহর ছেড়ে নদীর অপর পাড়ে চলে যাচ্ছে৷ তখন হারুনও দলসহ তাদের সঙ্গে চলে যান৷ ফলে আমি আমার কাঙ্ক্ষিত সৈন্যদের না পাওয়াতে শহর ধরে রাখা সম্ভব হয়নি৷”

উক্ত বিষয়টি স্পষ্ট ভাবে প্রমাণ করে জিয়াউর রহমান যুদ্ধকে ভয় পেতেন। কিংবা পশ্চিম পাকিস্তানের বিপক্ষে তিনি তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে যুদ্ধ করেছিলেন। কারণ জন্ম থেকেই তিনি বেড়ে উঠেছিলেন পশ্চিম পাকিস্তানে। জেনে রাখা প্রয়োজন জিয়াউর রহমান বাংলায় লিখতে পারতেন না। এমনি বাংলায় ঠিক মতো বাংলায় কথাও বলতে পারতেন না। ফলে পশ্চিম পাকিস্তানের প্রতি তার ভালোবাসা থাকাটা অস্বাভাবিক কিছু না।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি