শুক্রবার ২২ অক্টোবর ২০২১
  • প্রচ্ছদ » Lead 2 » মুক্তিযুদ্ধের প্রধান সেনাপতি ওসমানিকে অপসারণ করতে চেয়েছিলেন জিয়াউর রহমান



মুক্তিযুদ্ধের প্রধান সেনাপতি ওসমানিকে অপসারণ করতে চেয়েছিলেন জিয়াউর রহমান


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
09.10.2021

জিয়াউর রহমান

নিউজ ডেস্ক: মুক্তিযোদ্ধা মেজর রফিকুল ইসলাম তার ‘সামরিক শাসন ও গণতন্ত্রের সংকট’ নামক বইয়ের ৫২ পৃষ্টায় মুক্তিযুদ্ধের গুরুত্বপূর্ণ ইতিহাস তুলে ধরেন। যা থেকে প্রমাণ পাওয়া যায় জিয়াউর রহমান ছিলেন, একজন ক্ষমতা লোভী ষড়যন্ত্রকারী।

মেজর রফিকুল ইসলাম লিখেন, মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন ওসমানীর সাথে জিয়ার সম্পর্কের অবনতি ঘটে। একাত্তরের ১১ জুলাই কলকাতার ৮নং থিয়েটার রোডে প্রবাসী বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দিনের সভাপতিত্বে সেক্টর কমান্ডারদের এক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। যুদ্ধের সার্বিক রণকৌশল নির্ধারণ করাই এই বৈঠকের মূল উদ্দেশ্য ছিল। জিয়া এসময় একটা প্রস্তাব করেন যে, অবিলম্বে একটা যুদ্ধ কাউন্সিল গঠন করতে হবে। এই প্রস্তাবে কর্নেল ওসমানীকে প্রধান সেনাপতির দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দিয়ে প্রতিরক্ষা মন্ত্রীর দায়িত্ব দেয়ার প্রস্তাব করা হয়। সুস্পষ্টই এটা ছিল যুদ্ধপরিচালনার ব্যাপারে জিয়ার কর্তৃত্ব প্রতিষ্ঠার প্রয়াস। মেজর শফিউল্লাহ এবং খালেদ মোশাররফ এই প্রস্তাবের বিরোধিতা করেন, তারা বুঝতে পেরেছিলেন এটা জিয়ার কূটকৌশল। কারণ, ওসমানী অপসারিত হলে জৈষ্ঠ্যতা অনুযায়ী তখন জিয়াই হবেন সেনাপতি।

“এক প্রশ্নের উত্তরে তৎকালীন সেনাপ্রধান শফিউল্লাহ জানাচ্ছেন, ৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে জিয়া একসময় ওসমানীকে কমান্ডিং চীফ থেকে সরিয়ে দেবার কথা চিন্তা করেন। এ ব্যাপারে তিনি আমাকে বলেন, জেনারেল ওসমানী বৃদ্ধ হয়ে গেছেন। সুতরাং ইয়ংদের মাঝ থেকে দায়িত্ব নিতে হবে। আমি এই প্রস্তাবের প্রতিবাদ করি এবং এ ব্যাপারে আমার সাথে তাকে আর কোন কথা না বলার জন্য বলি। এমন আরো ঘটনাই আছে যা প্রমাণ করে তিনি উচ্চাকাঙ্ক্ষী ও ক্ষমতালোভী ছিলেন”।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি