বৃহস্পতিবার ২১ অক্টোবর ২০২১



কাঙ্ক্ষিত পারিশ্রমিক না মেলায় তাসনিমের বিরুদ্ধে সমকামী সঙ্গীর মামলা


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
11.10.2021

তাসনিমের বিরুদ্ধে সমকামী সঙ্গী

নিউজ ডেস্ক: ন্যায্য পারিশ্রমিক পরিশোধ না করার অভিযোগে কথিত সাংবাদিক তাসনিম খলিলের বিরুদ্ধে মামলা করেছেন তার সমকামী সঙ্গীরা। জানা গেছে, জনপ্রতি ৫ হাজার সুইডিশ মুদ্রার বিনিময়ে তাসনিমের সাথে রাত কাটাতে রাজি হয় দুই সুইডিশ কিশোর। ৬ সেপ্টেম্বর (বুধবার) সারারাত ফুর্তি করে সকালে তাদেরকে মোট ৫ হাজার সুইডিশ মুদ্রা দেন এবং বাকিটা দু’দিন পরে দিবেন বলে জানান তাসনিম খলিল। কিন্তু ঘটনার ৫ দিন পেরুলেও দিচ্ছেন না বাকি টাকা, ধরছেন ফোনও। এতে সুইডিশ ওই ডেটিং সাইটে তাসনিমের একাউন্ট বাতিল করতে নিজেদের প্রতিক্রিয়া জানিয়ে মেইল করেছে ওই কিশোরদ্বয়।

নাম পরিচয় গোপন রাখার শর্তে ওই কিশোরদ্বয় বাংলা নিউজ ব্যাংকের সুইডিশ প্রতিনিধিকে জানায়, বিকৃত যৌনাকাঙ্ক্ষা তাসনিমের। রাতভর এক প্রকার নির্যাতন করেছেন আমাদের। তারা ভেবেছিল ১০ হাজার ক্রোনোসহ (সুইডিশ মুদ্রা) বকশিশও দেবেনে। কিন্তু তিনি প্রাপ্য অর্থই দেননি। তাই তারা বকেয়া পাওনার জন্য অরিব্রু শহরের একটি থানায় ইতোমধ্যে অভিযোগ দায়ের করেছে তারা।

জানা যায়, তাসনিম খলিলের বিরুদ্ধে সমকামীতার অভিযোগ পুরনো ঘটনা। তার পুরনো সহকর্মী থেকে শুরু করে পরিচিতজনদের অনেকেই মনে করেন, সমকামীতার অবাধ সুযোগ থাকায় বিশ্বের অনেকে দেশের মধ্যে সুইডেনকে বেছে নিয়েছে তাসনিম। টাকার বিনিময়েই মূলত দেশবিরোধী কাজ করেন তিনি। বিভিন্ন অপকর্মের কারণে বাংলাদেশ ছেড়ে পাড়ি জমান ইউরোপের দেশ সুইডেনে।

এদিকে সমকামীবান্ধব দেশ হিসেবে সুইডেনের পরিচিত রয়েছে বিশ্বে। সমকামীতাকে সমর্থন করার জন্য দেশজুড়ে বার্ষিক অনুষ্ঠান হয়। তবে স্টকহোম প্যারেড যার মধ্যে প্রাচীনতম এবং বৃহত্তম। সেই স্টকহোমের পাশের অরিব্রু শহরে বসবাস বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত সুইডিশ নাগরিক তাসনিম খলিলের। সাংবাদিকতার আড়ালে ‘গুজব কিং’ নামে তার ব্যাপক দুর্নাম থাকলেও বাংলাদেশের স্বাধীনতাবিরোধী শক্তির কাছে তার জনপ্রিয়তা তুমুল।

সুইডেনে এলজিবিটি সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিদের প্রতি মনোভাবটি ইতিবাচক এবং বন্ধুত্বপূর্ণ। বৈষম্যে বা তাদের উপর নির্যাতনের ঘটনা অত্যন্ত বিরল। এখন দেখার বিষয় তার এই নোংরা কর্মকাণ্ডের কারণে কী ব্যবস্থা নেয় দেশটির আইনশৃঙ্খলা বাহিনী।

উল্লেখ্য, সমকামিতা ১৯৪৪ সালে বৈধ করা হয়েছিল। ১৯৯৫ থেকে সমকামী বিবাহের অনুমতি দেওয়ার জন্য সুইডেন বিশ্বের সপ্তম দেশ হয়ে উঠে, যা ২০০৯ সালের সংশোধিত আইনে প্রতিফলিত হয়।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি