বৃহস্পতিবার ২১ অক্টোবর ২০২১
  • প্রচ্ছদ » other important » শাশুড়িকে কুপিয়ে হত্যা ও শ্যালিকার হাত বিচ্ছিন্ন করায় জামায়াত নেতার ৪০ বছরের কারাদণ্ড



শাশুড়িকে কুপিয়ে হত্যা ও শ্যালিকার হাত বিচ্ছিন্ন করায় জামায়াত নেতার ৪০ বছরের কারাদণ্ড


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
14.10.2021

কক্সবাজারের টেকনাফে শাশুড়িকে দা দিয়ে কুপিয়ে হত্যা এবং দায়ের কোপে শ্যালিকার হাত বিচ্ছিন্ন করার মামলায় শামসুল আলম নামের এক জামায়াত নেতাকে ৪০ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত। এর মধ্যে শাশুড়িকে হত্যা দায়ে ৩০ বছর ও শ্যালিকার হাত বিচ্ছিন্ন করার দায়ে ১০ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

বুধবার আসামির উপস্থিতিতে এ রায় দেন কক্সবাজার জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মোহাম্মদ ইসমাঈল।

এর আগে, ২০১৩ সালের ১১ ডিসেম্বর সীমানা বিরোধের জেরে টেকনাফ সদর ইউনিয়নের খোন্দকার পাড়ায় এ হত্যাকাণ্ড ঘটে। সাজাপ্রাপ্ত জামায়াত নেতা শামসুল একই গ্রামের জহির আহম্মদ মিস্ত্রীর ছেলে।

নিহতের স্বামী আবদুল গফুর বলেন, স্থানীয় জামায়াত নেতা শামসুল আলম আমার মেয়ের স্বামী। প্রতিবেশী হওয়ায় তাদের সঙ্গে আমাদের সীমানা নিয়ে বিরোধ ছিল। এরই জেরে দিন-দুপুরে আমার স্ত্রীকে কুপিয়ে হত্যা এবং আমার ছোট মেয়ের হাত বিচ্ছিন্ন করে এই জামায়াত নেতা।

আদালতের পিপি ফরিদুল আলম বলেন, হত্যা ও হত্যা চেষ্টা মামলায় শামসুল আলমকে পৃথকভাবে ৪০ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি