রবিবার ৫ ডিসেম্বর ২০২১
  • প্রচ্ছদ » Lead 1 » থেমে থেমে জ্বর আসছে খালেদার, তারেকের ‘চওড়া হাসি’!



থেমে থেমে জ্বর আসছে খালেদার, তারেকের ‘চওড়া হাসি’!


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
16.10.2021

তারেক ও খালেদা

নিউজ ডেস্ক: ফের অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। কিন্তু চিকিৎসাধীন দলীয় নেত্রী ও গর্ভধারিণী মায়ের খোঁজ নিতে এখনও পর্যন্ত একবারও ফোন করেননি লন্ডনে পলাতক ফেরারি আসামি ও বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। বরং তিনি বিভিন্ন বারে-ক্লাবে উৎসবমুখর সময় কাটাচ্ছেন। হাসছেন ‘চওড়া হাসি’। কারণ, দুর্গাপূজাকে ঘিরে তার নেয়া নাশকতার পরিকল্পনা সফল হয়েছে। তাই এই সফলতার কাছে মায়ের অসুস্থতা তার কাছে ‘গুরুত্বহীন’ বলে বিবেচিত হচ্ছে। এজন্য দশ মাস দশদিন গর্ভে ধারণ করা মায়ের খোঁজ নেয়ার তিনি প্রয়োজনই বোধ করছেন না বলে জানা গেছে।

নির্ভরযোগ্য সূত্রের তথ্যমতে, দীর্ঘদিন ধরে দলের শীর্ষ পদে বসা নিয়ে খালেদা-তারেকের মধ্যে নিরব যুদ্ধ চলে আসছে। বিষয়টি আরও প্রকট হয় সরকারের মহানুভবতায় গত বছরের ২৫ মার্চ বিএনপি নেত্রীর কারামুক্তির পর। তিনি জানতে পারেন, তারেক তার মুক্তির ব্যাপারে বিন্দুমাত্র চেষ্টা করেনি। উপরন্তু তার মুক্তির কথা বলে দেশি-বিদেশি বিভিন্ন দাতা থেকে মোটা অংকের টাকা নিয়েছে। সেই সঙ্গে ‘হাওয়া ভবন’র আদলে গড়ে তুলেছে নিজের আলাদা এক সাম্রাজ্য। যার মাধ্যমে সে পদ-কমিটি-মনোনয়ন ও তদবির বাণিজ্য চালিয়ে হাতিয়ে নিচ্ছে কোটি কোটি টাকা। ফলশ্রুতিতে তার এহেন উদাসী কাণ্ডে মুখ থুবড়ে পড়েছে বিএনপি। পরবর্তীতে বিষয়টি আরও স্পষ্ট হয় স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী অনুষ্ঠানে। সেখানে ব্যানার থেকেই তার ছবি সরিয়ে ফেলা হয়। এমনকি করোনায় আক্রান্ত হওয়ার পরেও তিনি তার মায়ের ন্যূনতম খোঁজ-খবর রাখেননি। কালেভদ্রে তার স্ত্রী ‘দায়সারা’ভাবে ফোন দিলেও কথা বলতেন সর্বোচ্চ ৪০ সেকেন্ড। সম্প্রতি খালেদা আবারও অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হওয়ার খবরে তারেকের মনে বইছে ‘ঈদের আনন্দ’। কারণ, খালেদা মরলেই তার পথের কাঁটা সরে যাবে।

বাংলানিউজ ব্যাংকের অনুসন্ধানে জানা গেছে, হাসপাতালে খালেদার পাশে কেউই নেই। এমনকি নিজের পরিবারের কেউ না। যা করার বাইরের লোকজনই করছেন। এ ব্যাপারে তার বোন সেলিমা ইসলামের সঙ্গে কথা হলে তিনি বলেন, তার সঙ্গে আমি দেখা করতে যাইনি। তাই বলতে পারছি না কি অবস্থায় আছে এখন। তবে আমার ভাইয়ের স্ত্রী দেখা করে এসেছে এতটুকু জানি।

তারেক খোঁজ নিয়েছে কিনা জানতে চাইলে তিনি এই প্রতিবেদককে বলেন, এটা তাদের মা-ছেলের ব্যাপার। বিস্তারিত কিছু জানিনা। তবে যতদূর শুনেছি, এখনও ফোন দেয়নি। আমি অবশ্য বেশ ক’বার তার ফোনে ট্রাই করেছিলাম। কিন্তু সে ধরেনি। হয়তো ধরার প্রয়োজন মনে করেনি।

এ বিষয়ে দেশের রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা বলছেন, যে সন্তান ক্ষমতার লোভে নিজের মাকে বলি দিতেও পিছপা হয় না, সে মানুষ হয় কিভাবে? অবশ্য তিনি মানুষও নন, কারণ তার শরীরে বইছে বন্দুকের নলের মাধ্যমে ক্ষমতা দখলকারী খুনি জিয়াউর রহমানের রক্ত। তাই তার থেকে আর কি-ইবা ভালো আশা করা যায়?



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি