সোমবার ২৯ নভেম্বর ২০২১
  • প্রচ্ছদ » Lead 3 » সরকারের উন্নয়নে খুশি হয়ে নৌকার পক্ষে ভোট চাইলেন বিএনপি নেতা!



সরকারের উন্নয়নে খুশি হয়ে নৌকার পক্ষে ভোট চাইলেন বিএনপি নেতা!


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
26.10.2021

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জে তৃতীয় ধাপের ইউপি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের মনোনীত এক চেয়ারম্যান প্রার্থীর সভায় প্রধান অতিথি হয়েছেন স্থানীয় বিএনপির এক গুরুত্বপূর্ণ নেতা। নৌকা মার্কায় ভোটও চেয়েছেন তিনি। এ নিয়ে কালীগঞ্জ উপজেলা বিএনপি নেতাকর্মীদের মধ্যে ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। একই সঙ্গে বিষয়টি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকেও ভাইরাল হয়েছে।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, তৃতীয় ধাপে ইউপি নির্বাচনের তারিখ ঘোষণার পর কালীগঞ্জ উপজেলার ১১ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের দলীয় প্রার্থীদের নামও ঘোষণা করা হয়। এতে কোলা ইউনিয়নে নৌকার চেয়ারম্যান প্রার্থী করা হয় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মনোয়ার হোসেন বাদশাকে। রোববার (২৪ অক্টোবর) উপজেলার দামদারপুর বাজারের ঈদগা মাঠে এক নির্বাচনী পথসভা ডাকেন তিনি।

বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মালেকের সভাপতিত্বে ওই নির্বাচনী সভায় প্রধান অতিথি করা হয় উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক ডা. নূরুল ইসলামকে।

সভায় বিএনপি নেতা ডা. নূরুল ইসলাম বলেন, আমি একজন বিএনপি নেতা। কিন্তু গ্রামের স্বার্থে সবাই মিলে বাদশাকে ভোট দিতে হবে। জোরালোভাবে মাঠে নেমে কাজ করে নৌকাকে বিজয়ী করতে হবে।

বিষয়টি জানাজানি হওয়ার পর থেকে উপজেলা বিএনপির নেতাকর্মীদের মধ্যে সমালোচনার ঝড় ওঠে।

কালীগঞ্জ উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক মাহবুবার রহমান বলেন, নুরুল ইসলাম বিএনপির একজন সিনিয়র নেতা হয়ে কীভাবে নৌকা প্রতীকের নির্বাচনী সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত হয়েছেন, এটা ঠিক বুঝতে পারছি না। এ বিষয়ে আমি কেন্দ্রীয় নেতাদের সঙ্গে কথা বলবো এবং কেন্দ্রীয় নেতারা তার এ কাজের জন্য একটা সিদ্ধান্ত নেবেন বলে আশা করছি।

ঝিনাইদহ-৩ আসনের সংসদ সদস্য ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. আনোয়ারুল আজিম আনার জাগো নিউজকে বলেন, কোলা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের নৌকার চেয়ারম্যান প্রার্থী মনোয়ার হোসেন বাদশা দলীয় নেতাকর্মীদের না জানিয়ে নির্বাচনী সভা করেছেন। শুধু তাই নয়, তার এ সভায় বিএনপি নেতাকে প্রধান অতিথি করায় ওই ইউনিয়নের গ্রামবাসী তার প্রতি ক্ষুব্ধ।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, বাদশা কোলা ইউনিয়নে নারী কেলেঙ্কারি অনিয়ম ও দুর্নীতির দায়ে অভিযুক্ত হয়েছিলেন। কিন্তু তাকে মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে জানতে বিএনপি নেতা ডা. নূরুল ইসলামের মোবাইলে একাধিকবার কল করলেও তিনি রিসিভ করেননি। তার মোবাইল নম্বরে ক্ষুদে বার্তা পাঠালেও কোনো উত্তর পাওয়া যায়নি।

এদিকে, নৌকার প্রার্থী মনোয়ার হোসেন বাদশার মোবাইলে কল দিলে তিনি ‘আমি ব্যস্ত আছি পরে কথা হবে’ বলে ফোন রেখে দেন।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি