রবিবার ৫ ডিসেম্বর ২০২১
  • প্রচ্ছদ » Lead 3 » সরকারের কঠোর তৎপরতায় গ্রেফতার হলো কমলগঞ্জের অপরাধীরা



সরকারের কঠোর তৎপরতায় গ্রেফতার হলো কমলগঞ্জের অপরাধীরা


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
04.11.2021

নিউজ ডেস্ক : মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে প্রতিপক্ষের হামলায় চৈত্রঘাট বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি নাজমুল হাসান নিহতের ঘটনায় ব্যাপক তৎপরতা দেখায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। ইতিমধ্যে সরকারের পৃষ্ঠপোষকতায় ৬ জনকে আটক করেছে র‌্যাব। যার মধ্যে ৪ জনকে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

এছাড়া নাজমুল হাসানের হত্যা মামলার প্রধান আসামিকে বিদেশ যাওয়ার পথে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

মূলত কমলগঞ্জের ঘটনাকে অত্যন্ত গুরুত্ব সহকারে গ্রহণ করে আইনশৃঙ্খলাবাহিনী। যার কারণে ঘটনার পরের দিনই হত্যাযজ্ঞে ব্যবহৃত মাইক্রোবাসসহ (ঢাকা মেট্রো-চ ১৫-২৫৪৪) গাড়িচালক কাজী আমির হোসেন হিরাকে (৪২) সোমবার ভোর রাতে আটক করা হয়।

এদিকে ৩১ অক্টোবরের ঘটে যাওয়া ঘটনার ভিডিও ৪ নভেম্বর প্রকাশ করে একটি মহল বিভ্রান্ত ছড়ানোর চেষ্টা করছে। যেখানে কুচক্রী মহল পূর্ব বিরোধের জের ধরে হওয়া হতাহতের ঘটনাকে রাজনৈতিক হত্যা বলে চালিয়ে দেয়ার চেষ্টা করছে। সঙ্গে আইনশৃঙ্খলাবাহিনীর কর্ম প্রক্রিয়া নিয়েও অনেকে প্রশ্ন তোলার চেষ্টা করেছেন। যা সম্পূর্ণ অমূলক বলে আখ্যায়িত করেছে বিশিষ্ট জনেরা। কারণ মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে নাজমুল হাসান নিহত হবার পর থেকেই আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কঠিনভাবে তৎপর হয়। যার ফলস্বরূপ সকল আসামিদের স্বল্প সময়ে গ্রেফতার করা হয়। এরপরও যদি কেউ আইনশৃঙ্খলাবাহিনীকে প্রশ্নবিদ্ধ করার চেষ্টা করে, তবে এই মিথ্যাচার নিতান্ত রাজনৈতিক উদ্দেশ্যেই করা হচ্ছে বলে বিবেচিত।

অপরদিকে কমলগঞ্জে ব্যবসায়িক দ্বন্দ্বের কারণে প্রতিপক্ষের হামলায় ব্যবসায়ী নাজমুল হাসান চার দিন আগে নিহত হলেও চার দিন পরে ফেসবুকে প্রকাশ করে ক্যাপশনে লেখা হচ্ছে রাজনৈতিক কর্মী হওয়ায় খুন করা হয়েছে।

এটিও ছিলো রাজনৈতিক প্রোপাগান্ডা। কারণ এলাকাবাসী বলছেন, নিহত নাজমুল কোনো রাজনৈতিক মতাদর্শের ছিলো না। তিনি চৈত্রঘাট বাজারের ব্যবসায়ী ছিলেন। তবে নাজমুলের ব্যবসায়িক শত্রু ছিলো। যারা নাজমুলকে দিনে দুপুরে হত্যা করেছে। এর সঙ্গে কোনো রাজনৈতিক উদ্দেশ্যের সংশ্লিষ্টতা নেই।

স্থানীয়রা আরো জানান, রোববার দুপুরে উপজেলার চৈত্রঘাট বাজারে প্রতিপক্ষের লোকজন বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি নাজমুল হাসানের ওপর অতর্কিত হামলা চালায়। এ সময় হামলাকারীদের উপর্যুপরি দায়ের কোপে গুরুতর আহত নাজমুলকে উদ্ধার করে প্রথমে মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়।

সেখানে শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাকে দ্রুত সিলেট উইমেন্স মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। উইমেন্স মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রোববার রাত সাড়ে ৭টায় তার মৃত্যু হয়। নাজমুল হত্যার সিসিটিভি ফুটেজ আইনশৃঙ্খলাবাহিনী তৎক্ষণাৎ সংগ্রহ করে উচ্চপর্যায়ের তদন্ত গঠন করে। ঘটনা ঘটার মাত্র তিন দিনের মাথায় প্রধান আসামীসহ ছয় জনকে আটক করে উত্তপ্ত পরিস্থিতি সহসীকতার সঙ্গে সামাল দেয় তারা। বর্তমানে উক্ত এলাকার পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি