রবিবার ৫ ডিসেম্বর ২০২১
  • প্রচ্ছদ » Lead 1 » ভর্তুকির চাপ কমাতেই বাড়ানো হয়েছে জ্বালানি তেলের দাম



ভর্তুকির চাপ কমাতেই বাড়ানো হয়েছে জ্বালানি তেলের দাম


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
05.11.2021

নিউজ ডেস্ক: বৈশ্বিক জ্বালানির মূল্য বৃদ্ধির ফলে ভর্তুকির চাপ কমাতেই বাড়ানো হয়েছে জ্বালানি তেলের দাম। করোনার পর বিশ্ব অর্থনীতি গতি ফিরে পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে জ্বালানি তেলের দাম হু হু করে বাড়ছে। প্রতি ব্যারেল অপরিশোধিত তেলের দাম ৮৩ ডলার ছাড়িয়ে গেছে। যা গত ৭ বছরের মধ্যে সর্বোচ্চ।

সরকার নির্ধারিত আগের দামে ডিজেল বিক্রি করতে গিয়ে (বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম কর্পোরেশন) বিপিসিকে প্রতি লিটারে ১৩ থেকে ১৪ টাকা লোকসান দিতে হচ্ছে। এই লোকসানের হার কমাতে এবং তেল পাচার রোধে বিদ্যুৎ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয় ডিজেল ও কেরোসিনের মূল্য প্রতি লিটারে ভোক্তা পর্যায়ে ৬৫ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৮০ টাকায় নির্ধারণ করেছে। এবং এটি বুধবার মধ্যরাত থেকেই কার্যকর হয়েছে।

সাধারণত আন্তর্জাতিক বাজারে ব্যারেল প্রতি তেলের দাম ৬৯ মার্কিন ডলার ছাড়িয়ে গেলেই ক্ষতির শিকার হয় জ্বালানি আমদানি ও বিতরণকারী রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন সংস্থা বিপিসি। গেলো সেপ্টেম্বরে বিপিসি প্রতি ব্যারেল ডিজেল ৮৭.১২ ডলারে এবং ৪৮৫.০৯ ডলারে প্রতি মেট্রিক টন ফার্নেস অয়েল আমদানি করেছে। আকস্মিক এই দাম বৃদ্ধির কারণে, বিপিসি গত কয়েক মাস ধরে দৈনিক ২০ কোটি টাকা ক্ষতির শিকার হচ্ছে। আর গত অক্টোবর মাসেই লোকসান হয়েছে ৭২৬ কোটি টাকা।

এদিকে দেশে যখন ডিজেল ৬৫ টাকা লিটার তখন ভারতে ডিজেলের দাম বাংলাদেশি মুদ্রায় লিটার প্রতি ১২৪ টাকা। দাম কমানোর পরও ভারতের মূল্য দাঁড়িয়েছে ১০২ টাকা লিটার। বাংলাদেশে দাম বেড়ে হয়েছে ৮০ টাকা লিটার। এখনো বাংলাদেশের চাইতে ভারতের বাজারে প্রতি লিটার ডিজেলের মূল্য ২২ টাকা বেশি। সে হিসেবে ভারতের চেয়ে বেশি ভর্তুকি দিচ্ছে বাংলাদেশ।

সূত্র বলছে, বিশ্ববাজারে তেলের দাম বাড়ার ফলে বিপিসিকেও চড়া লোকসান দিয়ে জ্বালানি তেল বিক্রি করতে হচ্ছে। এই অবস্থায় লোকসান কমাতে বিপিসি ডিজেলের দাম বাড়াতে জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের কাছে প্রস্তাব পাঠায়। প্রস্তাব কার্যকর হওয়ায় রাষ্ট্রীয় লোকসান কিছুটা হলেও কমবে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি