সোমবার ২৯ নভেম্বর ২০২১
  • প্রচ্ছদ » Lead 3 » খালেদা জিয়ার মৃত্যু নিয়ে মান্নার মোনাফেকি!



খালেদা জিয়ার মৃত্যু নিয়ে মান্নার মোনাফেকি!


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
19.11.2021

নিউজ ডেস্ক: বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া অনেক বছর থেকেই বার্ধক্যজনিত অসুস্থতায় ভুগছেন। দুর্নীতির মামলায় সাজাপ্রাপ্ত হলেও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মহানুভবতার কারণে খালেদা জিয়ার সাজা স্থগিত করে বাসায় থেকে সু-চিকিৎসার সুযোগ দিয়েছে সরকার। তিনি বাসা এবং হাসপাতাল থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন। কিন্তু খালেদা জিয়ার চিকিৎসা নিয়ে নানা বিভ্রান্তিকর দাবি এবং মিথ্যাচার শুরু করেছে বিএনপি এবং তাদের জোটসঙ্গী রাজনৈতিক দলের নেতারা। বুধবার দুপুরে রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থার খোঁজ নিতে গিয়ে নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না বলেছেন, বেগম জিয়া খুব হাইরিস্কে আছেন। বিনা চিকিৎসায় তাকে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দেওয়া হচ্ছে।

এদিকে হাসপাতালে গিয়ে মান্নার এই বক্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়েছে দেশের আলেম-সমাজ। মানুষের জন্ম-মৃত্যুর ​মালিক আল্লাহ, অন্য কেউই এ বিষয়ে কথা বলতে পারে না বলে জানিয়েছেন দেশের সম্মানিত আলেমরা। রাজধানীর মিরপুর ৬ নম্বর বায়তুল মোশাররফ জামে মসজিদের খতিব মুফতি নাসিরুউদ্দীন কাসেমী বলেন, ‘রাজনীতিবিদরা রজনীতির প্রয়োজনে নানা কথা বলে থাকেন। কিন্তু কারও জন্ম-মৃত্যু নিয়ে কথা বলার এখতিয়ার কোন মানুষকেই দেননি আল্লাহ। কে কখন মরবে-জন্ম গ্রহণ করবে, কার কিভাবে মৃত্যু হবে এসব একমাত্র আল্লাহর হাতে। আল্লাহ যার মৃত্যু যেভাবে লিখে রেখেছেন সেভাবেই তার মৃত্যু হবে। এই কথাকে যারা বিশ্বাস করে না তারা মুনাফেক।’

পবিত্র আল কুরআনেও মানুষের জন্ম-মৃত্যু সম্পর্কে স্পষ্ট করে বলা হয়েছে, ‘আল্লাহই তোমাদের জীবন দান করেছেন। তিনিই তোমাদের মৃত্যু ঘটাবেন। আবার তিনিই তোমাদেরকে পুনরুত্থিত করবেন। তারপরও মানুষ অতি-অকৃতজ্ঞ!’ (সূরা হজ্ব, আয়াত ৬৬)

‘নিশ্চয়ই কখন কেয়ামত হবে তা শুধু আল্লাহই জানেন। তিনি মেঘ থেকে বৃষ্টিবর্ষণ করেন। তিনি জানেন জরায়ুতে কী আছে। অথচ কেউই জানে না আগামীকাল তার জন্যে কী অপেক্ষা করছে এবং কেউ জানে না কোথায় তার মৃত্যু হবে। শুধু আল্লাহই সর্বজ্ঞ, সব বিষয়ে অবহিত।’ (সূরা লোকমান, আয়াত ৩৪)

‘নিশ্চয়ই মৃত্যুর সময় নির্ধারিত। আল্লাহর অনুমতি ছাড়া কারো মৃত্যু হতে পারে না। কেউ পার্থিব পুরস্কারের জন্যে কাজ করলে তাকে তার পুরস্কার ইহকালে দান করবো। আর যদি কেউ পরকালের জন্যে কাজ করে তবে তার পুরষ্কার সে পরকালে পাবে। শোকরগোজার বান্দাদের কাজের ফল আমি নিশ্চয়ই দেবো।’ (সূরা আল-ইমরান, আয়াত ১৪৫)

আলেমদের মতে, জন্ম-মৃত্যু সম্পর্কে কোরআন শরীফের এমন স্পষ্ট নির্দেশনা থাকা সত্ত্বেও যারা এর বিপরীত কথা বলে তারা মোনাফেক।

মুনাফিকের পরিচয় সম্পর্কে আল্লাহ বলেন : ‘তারা যখন ঈমানদার লোকদের সঙ্গে মিলিত হয়, তখন বলে আমরা ঈমান এনেছি। কিন্তু নিরিবিলিতে যখন তারা তাদের শয়তানদের সঙ্গে একত্রিত হয়, তখন তারা বলেন, আসলে আমরা তোমাদের সঙ্গেই রয়েছি, আর উহাদের সঙ্গে আমরা শুধু ঠাট্টাই করি মাত্র।’ (বাকারা ১৪)

‘তাদেরকে যখন বলা হয় যে, আল্লাহ যা নাযিল করেছেন সেইদিকে এসো ও রাসূলের নীতি গ্রহণ কর, তখন এ মুনাফিকদেরকে আপনি দেখতে পাবেন যে, তারা আপনার নিকট আসতে ইতস্তত করছে ও পাশ কাটিয়ে চলে যাচ্ছে।’ (নিসা ৬১)

জানা গেছে, নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না একজন সাবেক বাম নেতা। একসময় জাসদের রাজনীতির সাথে যুক্ত এই রাজনীতিবিদ ব্যক্তিগতভাবে ধর্মে বিশ্বাস করেন না। নাস্তিক একজন ব্যক্তি যে মৃত্যু সম্পর্কে এরকম কথা বলবেন তাতে অবশ্য দেশের আলেম সমাজ বিস্মিত হয়নি। কয়েকজন আলেম বলেন, মান্নার মত নাস্তিকরাই এধরনের ধর্ম বিরোধী কথা বলতে পারে। খালেদা জিয়ার মৃত্যু নিয়ে এই জাতীয় কথা বলে মোনাফেকে পরিণত হয়েছেন মাহমুদুর রহমান মান্না।

মোনাফেকের শাস্তি সম্পর্কে পবিত্র কোরআনে বলা হয়েছে, ‘নিশ্চয় মুনাফিকগণ জাহান্নামের সর্বনিম্ন স্তরে অবস্থান করবে, আর আপনি তাদের সাহায্যকারী হিসেবে কখনও কাউকে পাবেন না।’ (নিসা ১৪৫)

দেশের সম্মানিত আলেমরা মান্নার মত এইসব মোনাফেক নেতার কথাবার্তায় বিভ্রান্ত না হতে অনুরোধ করেছেন। মান্নার মত মোনাফেকদের বর্জন করা মুসলমানদের ঈমানী দায়িত্ব বলেও মনে করেন আলেমরা।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি