সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২



ম্যাসাকার অবস্থা বিএনপির, দায়ী করা?


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
01.12.2021

নিউজ ডেস্ক : বিএনপির ক্ষমতা হারানোর মেয়াদ ১৪ বছর শেষ হচ্ছে। ক্ষমতায় বসে জন্ম নেয়া দলটির জন্য ১৫ বছর ক্ষমতার বাইরে থাকা এক বিরাট পরীক্ষা। বাস্তবিক কারণেই দলটি অস্তিত্বের সংকটে ভুগছে। বিএনপির এই পরিণতির জন্য দায়ী কে? বিএনপির বিভিন্ন স্তরের নেতা-কর্মীরা এব্যাপারে তাদের মতামত রেখেছেন। তাদের মতামতের ভিত্তিতে বিএনপি আজকের অবস্থানের জন্য যারা দায়ী, তাদের তালিকা উপস্থাপন করা হলো:-

অধিকাংশ বিএনপির নেতা-কর্মীই মনে করে, বিএনপির আজকের এই অবস্থার জন্য সবচেয়ে বেশী দায়ী তারেক রহমান। তার দুর্নীতি, লাম্পট্য এবং অপরিণামদর্শী রাজনৈতিক সিদ্ধান্তের কারণেই বিএনপির এই হাল।

তবে বিএনপি চেয়ারপারসন হিসেবে বেগম খালেদা জিয়া এই ব্যর্থতার দায় এড়াতে পারেন না। পুত্রের প্রতি অন্ধ বিশ্বাসের কারণে তার অপকর্মের বিরুদ্ধে তিনি ব্যবস্থা নিতে পারেননি। যার দায় নিতে হয়েছে গোটা দলকে। সঙ্গে কোন রকম রাজনৈতিক জ্ঞান না থাকার পরও বিএনপির নীতি নির্ধারক হয়েছিলেন গিয়াসউদ্দিন মামুন। এছাড়া টেন্ডার থেকে শুরু করে সকল পর্যায়ের নিয়োগ বাণিজ্যের নিয়ন্ত্রণ করতেন তিনি। তার কারণেই বিএনপি একটি দুর্নীতিগ্রস্থ দলের পরিচয় পেয়েছে।

এছাড়া বিএনপি শাসনামলে দুর্নীতি এবং অপকর্মের অন্যতম কারিগর হয়ে উঠেছিলেন হারিছ চৌধুরী। তৎকালীন সময়ে প্রশাসনে অবৈধ হস্তক্ষেপ ও চাঁদাবাজির কারণে বিএনপির জনপ্রিয়তা তলানিতে নিয়ে যান এই হারিছ চৌধুরী।

এদিকে বাবর ছিলেন তারেকের লাঠিয়াল। ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা, ১০ ট্রাক অস্ত্র আমদানিসহ বহু অপকর্মের হোতা। বিএনপির এই বিপর্যয়ের জন্য তাকেও সমানভাবে দায়ী করা হয়।

অধ্যাপক ডা: বদরুদ্দোজা চৌধুরীকে হটিয়ে ড: ইয়াজ উদ্দিন আহমেদকে রাষ্ট্রপতি বানিয়েছিলেন খালেদা জিয়া। কিন্তু ইয়াজ উদ্দিনের ব্যক্তিত্বহীন মোসাহেবী, ক্ষমতায় থাকার লোভের চরম মূল্য দিতে হয়েছে বিএনপিকে। ড. ইয়াজউদ্দিনের প্রেস সেক্রেটারি করা হয়েছিল মোখলেছকে। তিনি তখন হয়ে উঠেছিলেন বঙ্গভবনে হাওয়া ভবনের প্রতিনিধি। তার বাড়াবাড়ি এবং ক্ষমতার অপব্যবহার বিএনপির জন্য ক্ষতিকর হয়ে উঠেছিল।

৭ জনকে ডিঙ্গিয়ে জেনারেল মঈনকে সেনা প্রধান করেছিলেন বেগম জিয়া। মঈন ইউ আহমেদ ক্ষমতায় টিকে থাকতে বিএনপিকে ছিন্ন ভিন্ন করেন বলে মনে করেন বিএনপির অনেক নেতা-কর্মীরা। এরা ছাড়াও আরো অনেক ব্যক্তি আছেন যাদের ভুল রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত এবং সীমাহীন দুর্নীতির জন্যই আজ বিএনপির এই হাল।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি