সোমবার ১৭ জানুয়ারী ২০২২



খালেদার জন্য কী করেছে বিএনপি?


বাংলা নিউজ ব্যাংক :
04.12.2021

নিউজ ডেস্ক: কিছু করা তো দূরে থাক, বরং খালেদার মুক্তি আন্দোলনকে কেন্দ্র করে অর্থবাণিজ্যে লিপ্ত হয়েছে বিএনপি। দেশি-বিদেশি বিভিন্ন দাতা থেকে মোটা অংকের টাকা নিয়ে তা ভাগ-বাটোয়ারা করে নিয়েছে নিজেদের মধ্যে। প্রেক্ষিতে নিজেদের ব্যর্থতা ঢাকতে আশ্রয় নিয়েছে মিথ্যাচারের। বলেছে, সরকার তাদের কিছুই করতে দিচ্ছে না। আদতেই কি তাই? তারা কি দলীয় নেত্রীর মুক্তিতে কখনোই সরব ছিলেন?

বিশ্বস্ত সূত্রের তথ্যমতে, প্রমাণিত দুর্নীতি মামলায় কারান্তরীণ থাকলেও বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির আন্দোলনে ‘আন্তরিকতা’ দেখায়নি দলটির নেতাকর্মীরা। উপরন্তু তার জ্যেষ্ঠপুত্র ও দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের নির্দেশনায় ‘নেত্রীকে মুক্তির নামে’ চলে চাঁদাবাজির মহড়া। পরে সেই টাকা ভাগ হয় নিজেদের মধ্যে। এখানেই শেষ নয়। দলের পক্ষ থেকে ‘লোক দেখানো’ সভা-সমাবেশ ডেকে সেখানে চলে রোদ পোহানোসহ গল্প-গুজব আর সেলফিবাজি। পরে সরকারের মহানুভবতায় কারামুক্তির পর বিষয়টি জানতে পারে খালেদা জিয়া। বাড়তে থাকে ‘সুসময়ের আস্থাভাজনদের’ সঙ্গে দূরত্ব। ফলশ্রুতিতে নেতাকর্মীরাও তার থেকে মুখ ফিরিয়ে নিতে শুরু করেন। সুযোগটাকে কাজে লাগিয়ে নিজস্ব বলয় গড়ে তোলেন লন্ডনে পলাতক ফেরারি আসামি ও বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। পছন্দের নেতাকর্মীদের সঙ্গে নিয়ে লন্ডনে বসেই শুরু করেন ‘দ্বিতীয় হাওয়া ভবন’র যাত্রা।

বিষয়টি যাতে গোপন থাকে, সেজন্য তিনি নিজের প্রতিষ্ঠিত ‘গুজব সেল’র সাহায্যে পেইড এজেন্টদের দিয়ে করেন সরকারবিরোধী মিথ্যাচার। বলেন, বিএনপির সব কাজেই সরকার বাঁধা দেন। কিন্তু প্রকৃত সত্য হলো, তারা নিজেরাই ‘অনৈক্য রোগে’ ভুগছে। তাই সেই ব্যর্থতা ঢাকতে বিরামহীনভাবে করছেন ‘উদোর পিণ্ডি বুদোর ঘাড়ে’ দেয়ার মতো কর্মকাণ্ড। গাফিলতি লক্ষ্য করা যায়, খালেদার আইনজীবীদের বিষয়েও। তারা এই দীর্ঘ সময়ে কিছুই করেনি দলীয় নেত্রীর জন্য। বরং তারেক রহমানের কথামতো করেছে মিডিয়ার সামনে মায়া কান্না।

এ বিষয়ে দেশের রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা বলছেন, ঘরে বসেই শুধু বুলি আওড়ান বিএনপি নেতাকর্মীরা। অন্ধের মতো দোষ দেন সরকারের। কিন্তু জনগণ অত বোকা নয়। তারা জানে, প্রকৃত দোষী কারা। সঙ্গে এটাও বিগত সময়ে পর্যবেক্ষণ করেছে যে, রাজপথে বেগম জিয়ার জন্য দৃশ্যমান কোন কর্মসূচি ছিলো না। তাই এখন যে আওয়াজ তারা তুলছে তার বিদেশে চিকিৎসার বিষয়ে, এটা স্রেফ নিজেদের রাজনৈতিক ফায়দা হাসিলের পন্থা বৈ অন্য কিছু নয়। এমতাবস্থায় সরকারের পাশাপাশি আমাদের সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে যাতে, কোনভাবেই স্বাধীনতাবিরোধী এই শক্তিটি নিজেদের নোংরা গন্তব্যে না পৈৗঁছতে পারে।



এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি