তারেকের নেতৃত্বে বিএনপির চাকা ঘুরবে না: বিশ্লেষকরা

রাজনৈতিক মারপ্যাঁচে জর্জরিত বিএনপি দলের সংকট নিরসনে উপযুক্ত কোনো ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারছে না। অনেকেই বলছেন, দলের পক্ষে কাজ করা বাদ দিয়ে সিনিয়র নেতারা একে অপরকে টেনে নিচে নামানোর কাজেই ব্যস্ত। এমন পরিস্থিতিতে বিএনপির রাজনীতি কোনদিকে মোড় নেবে তা নিয়ে দুশ্চিন্তায় দলটির সিনিয়র নেতারা। ফলে বাকি জীবনে বিএনপি পুনরায় ক্ষমতায় আসতে পারবে না বলে শঙ্কা প্রকাশ করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

এ প্রসঙ্গে বিএনপি থেকে সদ্য বহিষ্কার হওয়া এক নেতা বলেন, আমি অনেকদিন থেকেই চাচ্ছিলাম পদত্যাগ করতে। এ সময় বহিষ্কার হওয়ায় খুশি হয়েছি। দলীয় কর্মসূচি না থাকায় তৃণমূল নেতা-কর্মীরা হতাশার সাগরে ভাসছেন। সিনিয়র নেতাদের সঙ্গে তারেক রহমানের কাজের মিল খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না। তারেক রহমানের সমন্বয়হীনতা সম্পর্কে পুরোপুরি জেনেও দলের ভেতর অবস্থান ধরে রাখতে মুখ বুঝে সব সহ্য করছেন সিনিয়র নেতারা। বৈশ্বিক রাজনীতির প্রেক্ষাপটে বিএনপির ঘুরে দাঁড়ানোটাকে চ্যালেঞ্জ মানছেন নেতারাও। মূলত পদ হারানোর ভয়ে অনেকেই মুখ বুঝে অন্যায় সহ্য করছেন। আসলে সত্য উচ্চারণ করার সাহস সবার নেই।

দলকে সংগঠিত করার বদলে ক্রমাগত ভুলের কারণে রাজনীতিতে কোণঠাসা হয়ে পড়ছে বিএনপি। সব দুর্বলতা দূর করে বিএনপি ঘুরে দাঁড়াতে না পারলে জনপ্রিয়তা ও গ্রহণযোগ্যতা হারাবে দলটি।

এমন প্রেক্ষাপটে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলেন, পরিবারতন্ত্র থেকে বের হতে পারছে না বিএনপি। পারিবারিক সূত্রে দলের প্রধান হয়েছেন তারেক রহমান। কিন্তু শুধু তারেকের উপরে নির্ভরতার কারণে দলে বিকল্প নেতৃত্ব উঠে আসছে না। খালেদা জিয়ার বয়স, তারেক রহমানের লন্ডনে অবস্থানের জন্য বিকল্প নেতৃত্ব নিয়ে এমন প্রশ্ন আসাটাই গণতান্ত্রিক রাজনীতির অংশ। তবে বাস্তবতা হলো- এমন প্রশ্নকে বিএনপি গ্রহণ করবে কি না? বেগম খালেদা জিয়া বরাবরই জনগণের পাশে ছিলেন। কিন্তু বিএনপির অনেক নেতার ভেতর এই গুণ নেই। সুতরাং বিএনপির ঘুরে দাঁড়ানোটা আসলেই চ্যালেঞ্জিং বিষয় বলেই মনে হচ্ছে।

তিনি আরো বলেন, দলের ভেতরে তারেক রহমানের  জনপ্রিয়তা থাকলেও বাইরে, বিশেষ করে ভারতসহ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে তার ভাবমূর্তির সংকট আছে। অনেকের মতে, এ কারণেই ঘুরে দাঁড়াতে পারছে না বিএনপি। অনেকে এমনও বলছেন, তারেক রহমান নেতৃত্বে থাকলে বিএনপির চাকা ঘুরবে না।

Leave a Reply

Your email address will not be published.