খালেদা জিয়ার মতোই পদত্যাগ করছেন শ্রীলঙ্কার প্রধানমন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক : বাংলাদেশে যতোগুলো বিতর্কিত নির্বাচন হয়েছে তার মধ্যে অন্যতম হচ্ছে ১৯৯৬ সালের ১৫ই ফেব্রুয়ারিতে অনুষ্ঠিত ৬ষ্ঠ জাতীয় সংসদ নির্বাচন। ওই সময়ে বাংলাদেশের রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় ছিল বিএনপি। দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি ও চরম অনিয়মের কারণে সে সময় সাধারণ মানুষ আন্দোলন শুরু করে, যার কারণে পদত্যাগ করতে বাধ্য হয় খালেদা জিয়ার সরকার। প্রায় একই পরিণতি ঘটতে যাচ্ছে শ্রীলঙ্কার প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দা রাজাপক্ষের।

১৯৯৬ সালের খালেদা জিয়ার মতো গণবিক্ষোভের মুখে পদত্যাগ করতে পারেন শ্রীলঙ্কার প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দা রাজাপক্ষে। প্রেসিডেন্ট গোতাবায়া রাজাপক্ষের অনুরোধে তিনি পদত্যাগ করতে রাজি হয়েছেন বলে এক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে কলম্বো পেজ।

জানা যায়, শুক্রবার রাতে দেশটিতে দ্বিতীয় দফায় জরুরি অবস্থা জারি করেছেন শ্রীলঙ্কার প্রেসিডেন্ট। অব্যাহত বিক্ষোভের মধ্যে পরিস্থিতি সামলাতে জরুরি অবস্থা জারি করা হয়। এমন প্রেক্ষাপটে প্রধানমন্ত্রীর সম্ভাব্য পদত্যাগের কথা এলো।

কলম্বো পেজ-এর প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, প্রেসিডেন্টের বাড়িতে গোতাবায়া রাজাপক্ষের নেতৃত্বে মন্ত্রিসভার বিশেষ বৈঠক হয়েছে। সেখানে প্রধানমন্ত্রী মাহিন্দা পদত্যাগ করতে রাজি হয়েছেন। শ্রীলঙ্কার মন্ত্রিসভাকে অবহিত করা হয়েছে, চলমান আর্থিক সংকট সামাল দিতে না পারার কারণে তিনি পদত্যাগ করছেন। তার পদত্যাগের মধ্য দিয়ে মন্ত্রিসভাও বিলুপ্ত হবে।

এ প্রসঙ্গে রাজনৈতিক বিশ্লেষক বিভুরঞ্জন সরকার বলেন, শ্রীলঙ্কায় নতুন কিছু হচ্ছে না। আজ যেটা শ্রীলঙ্কায় হচ্ছে সেটা ১৯৯১ সালে বিএনপির শাসনামলে বাংলাদেশও মুখোমুখি হয়েছিলো। সে সময় জনগণের চাপের মুখে খালেদা জিয়া ও তার সরকার পদত্যাগ করতে বাধ্য হয়। বর্তমানে শ্রীলঙ্কার প্রধানমন্ত্রীর একই অবস্থা হয়েছে। এখন উচিত বাংলাদেশের মতো জনগণের ভোটে শ্রীলঙ্কায় নতুন প্রধানমন্ত্রী নির্বাচন করা। এরপর খালেদা জিয়ার মতো মাহিন্দা রাজাপক্ষেকে আইনের আওতায় এনে উপযুক্ত বিচার করা। কারণ অপরাধ যেই করুক, খালেদা জিয়া কিংবা মাহিন্দা, কেউই আইনের ঊর্ধ্বে নয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published.