তারেকের নেতৃত্বে হতাশ এবং ক্ষুব্ধ খালেদা

ঈদের দিন বিএনপির স্থায়ী কমিটির ৮ সদস্য ফিরোজায় গিয়েছিলেন। বেগম খালেদা জিয়ার সঙ্গে তারা এক ঘণ্টা বৈঠক করেছেন। এই বৈঠক ছিল অনানুষ্ঠানিক। বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বৈঠক থেকে বলেছেন যে, দেশের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে বিএনপি চেয়ারপারসনের সাথে তাদের কথা হয়েছে। তিনি দেশবাসীর কাছে সুস্থতার জন্য দোয়া চেয়েছেন।

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এটাও বলেছেন যে, বেগম খালেদা জিয়া এখনও অসুস্থ এবং চিকিৎসকরা তাকে নিয়মিত পরীক্ষা-নিরীক্ষা করছেন। কিন্তু মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এই এক ঘণ্টা বৈঠকে যে বিষয়টি নিয়ে কথা বলেননি তা হচ্ছে দল নিয়ে বেগম জিয়ার হতাশা। গতকাল বিএনপির স্থায়ী কমিটির ৮ সদস্য ফিরোজায় গিয়েছিলেন। এই এক ঘণ্টার আলোচনায় যতটা না দেশ নিয়ে আলোচনা হয়েছে, তার চেয়ে বেশি আলোচনা হয়েছে দল নিয়ে। স্থায়ী কমিটির অন্তত দু’জন সদস্য বলেছেন, যেভাবে দল পরিচালিত হচ্ছে তাতে বেগম খালেদা জিয়া খুশি নন। বরং দলকে ঐক্যবদ্ধ রাখার পক্ষে মতামত রেখেছেন বেগম জিয়া।

বিভিন্ন সূত্রগুলো বলছে যে, কথায় কথায় দলের নেতাদেরকে কারণ দর্শানোর নোটিশ, দল থেকে বহিষ্কার ইত্যাদি সংগঠনকে শক্তিশালী করে না, বরং দুর্বল করে। এখন সংকটের সময় দল থেকে হুটহাট লোকজনকে কারণ দর্শানোর নোটিশ দেওয়া ঠিক না বলে বেগম খালেদা জিয়া মন্তব্য করেছেন। স্পষ্টতই এই মন্তব্যের মাধ্যমে সাম্প্রতিক সময়ে যে গণবহিষ্কার এবং কারণ দর্শানোর নোটিশগুলো দেওয়া হচ্ছে, তার বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন বেগম খালেদা জিয়া। এর ফলে স্পষ্টতই তিনি তারেক জিয়ার নেতৃত্বের পদ্ধতির সঙ্গে দ্বিমত পোষণ করছেন।

এছাড়াও সংগঠনের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে বেগম খালেদা জিয়া হতাশা প্রকাশ করেছেন বলেও একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে। বৈঠকে উপস্থিত স্থায়ী কমিটির একজন সদস্য বলেছেন যে, বিএনপিকে মাঠে যাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন বেগম জিয়া। বিশেষ করে জেলায়-উপজেলায় গিয়ে সাংগঠনিক শক্তি বৃদ্ধির পরামর্শ দিয়েছেন। বেগম খালেদা জিয়া অন্যান্য রাজনৈতিক দলগুলোকে নিয়ে ঐক্যের উপর গুরুত্ব দিয়েছেন। শুধু প্রেসক্লাব এবং রিপোর্টার্স ইউনিটি কেন্দ্রীক কর্মসূচির বদলে তিনি জনগণকে সম্পৃক্ত করা হয় এমন কর্মসূচির উপর গুরুত্ব দিয়েছেন।

একজন স্থায়ী কমিটির সদস্য বলেছেন যে, দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতিসহ বিভিন্ন জন গুরুত্বপূর্ণ ইস্যু নিয়ে বিএনপিকে আরও সোচ্চার হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন বিএনপি চেয়ারপারসন। তিনি নেতাদেরকে সক্রিয় করা এবং নেতার যেনো দলের জন্য কাজ করেন, সে ব্যাপারে পরামর্শ দিয়েছেন। সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে যে, দলের ভেতর কোন্দল দূর করার ব্যাপারেও বেগম খালেদা জিয়া গুরুত্ব দিয়েছেন। উল্লেখ্য যে, দীর্ঘ প্রায় এক বছর পর স্থায়ী কমিটির সদস্যদের সঙ্গে খালেদা জিয়ার এই অনানুষ্ঠানিক বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বর্তমানে বেগম খালেদা জিয়া দুটি মামলায় দণ্ডিত হয়ে ১৭ বছরের কারাদন্ডে দন্ডিত। সরকার তার দণ্ড স্থগিত করে তাকে ফিরোজায় থাকার অনুমতি দিয়েছেন। দীর্ঘদিন হাসপাতালে থাকার পর এখন ফিরোজায় নিভৃত জীবনযাপন করছেন খালেদা জিয়া। তবে ঈদের দিনের এই সৌজন্য বৈঠকের মধ্য দিয়ে আভাস পাওয়া যাচ্ছে যে, তিনি হয়তো আবার রাজনীতিতে আসবেন। বেগম জিয়ার রাজনীতিতে ভূমিকা রাখুক এটা চাইছেন বিএনপি নেতারাও। তারা মনে করছেন যে, তারেক জিয়ার ভুল পথ থেকে বিএনপিকে সঠিক পথে ফিরিয়ে আনার জন্য খালেদা জিয়াকে সক্রিয় করার কোনো বিকল্প নেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published.