যে কারণে সিলেটে ত্রাণ দেয়নি বিএনপি

নিউজ ডেস্ক : স্মরণকালের সেরা বন্যা দেখছে সিলেট। প্রায় ৯০ ভাগ সিলেট প্লাবিত। সিলেট ও সুনামগঞ্জে বন্যার পানি যাতে সরে যেতে পারে, এজন্য কয়েকটি রাস্তা কেটে ফেলা হয়েছে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় সরকারমন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম।

মন্ত্রী বলেন, ‘বন্যাকবলিত এলাকায় কিছু রাস্তা কাটার প্রয়োজন পড়েছে। সিলেটের মেয়র সেটা জানিয়েছেন। এতে বন্যার পানি সহজে নেমে যাচ্ছে। কোথাও প্রয়োজন হলে আরও রাস্তা কেটে ফেলা হবে।’

বন্যার পানিতে প্রবল খাদ্য সংকটে পড়েছে সিলেটবাসী। বিভেদ ভুলে তাদের পাশে দাঁড়িয়েছে সরকারসহ আপামর জনগণ। তবে বিএনপির পক্ষ থেকে এখনো পাওয়া যায়নি কোনো প্রকারের ত্রাণ।

জানা গেছে, দীর্ঘদিন ক্ষমতার বাইরে থাকায় বিএনপি নেতা-কর্মীদের হাত প্রায় শূন্য হয়ে পড়েছে। এছাড়া অতীতেও বিভিন্ন সময়ে নেতা-কর্মীদের দেয়া চাঁদার সঠিক ব্যবহার না হওয়ায় ক্ষুব্ধ হয়েই দলটির দাতারা ত্রাণের নামে নতুন করে অর্থ দিতে রাজি হননি। দলটির একাধিক দায়িত্বশীল সূত্রের বরাতে এমন অভিযোগের বিষয়ে জানা গেছে।

বিএনপির একটি সূত্র বলছে, দেশের চলমান বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত দেশবাসীর পাশে দাঁড়াতে ১৮ জুন স্থায়ী কমিটির বৈঠকের মাধ্যমে নেতাদের নির্দেশনা দেন দলটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান। প্রয়োজনে ত্রাণ তহবিল গঠন করতে মির্জা আব্বাসের নেতৃত্বে একটি পকেট কমিটি গঠন করারও পরামর্শ দেন তারেক। এছাড়া আবদুল আউয়াল মিন্টু, তাবিথ আউয়ালদের মতো দলের বিত্তশালী নেতাদের কাছ থেকে অর্থসংগ্রহ করে সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়াতেও আহ্বান জানান তিনি। এদিকে, তারেকের এমন নির্দেশনা নিয়ে নতুন করে দলের অভ্যন্তরে দেখা দিয়েছে অসন্তোষ। নতুন নতুন ইস্যুতে আর চাঁদা দিতে চান না নেতারা। এছাড়া বিগত ১৪ বছর যাবৎ কারণে অকারণে চাঁদা নেয়ার পর, এখন কোন মুখে চাঁদা আদায় করা যায় সেটির যৌক্তিকতা নিয়েও বৈঠক শেষে তর্কে জড়িয়ে পড়েন মির্জা ফখরুল ও মির্জা আব্বাস।

সূত্রটি এও জানায়, তারেক রহমানের বিশেষ নির্দেশনা থাকা সত্ত্বেও ত্রাণ তৎপরতা শুরু করতে পারেনি বিএনপি। ত্রাণ তহবিল গঠন করার জন্য এক সপ্তাহ সময় চেয়েছেন মির্জা আব্বাস। তবে সেটি আদৌ সম্ভব হবে কিনা সেটির কোনো গ্যারান্টি দেননি তিনি। তবে দেশবাসীর জন্য ত্রাণ তহবিল গঠন করতে লন্ডনের বিশেষ সহায়তা চেয়েছেন তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published.