সেদিনই প্রমাণ হয়েছিল বঙ্গবন্ধু হত্যায় জড়িত ছিলেন জিয়া

নিউজ ডেস্ক: সদ্য স্বাধীন বাংলাদেশ যখন বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে নতুন ভোরের স্বপ্ন দেখছে, ঠিক তখনই নেমে আসে ঘোর অন্ধকার। বিপথগামী ও প্রতিক্রিয়াশীল একটি চক্র পরিণত হয় ঘাতকে। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট সূর্যোদয়ের আগে সপরিবারে শহিদ হন বঙ্গবন্ধু।

আর এই হত্যাকাণ্ড ঘটায় জাতীয় বেঈমান খ্যাত খন্দকার মুশতাক। শুধু তাই নয়, জাতির পিতার এই ঘৃণ্য হত্যাকাণ্ডের বিচার বন্ধ করতে রচিত হয় কলঙ্কিত এক অধ্যায়। বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের শাস্তি থেকে মুক্তি দিতে ওই বছরের ২৬ সেপ্টেম্বর “ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ” জারি করেন খন্দকার মোশতাক।

তখনও কেউ জানতো না এর পেছনের কুশীলব কে ছিলেন? তবে ধীরে ধীরে তা সামনে আসতে শুরু করে। ১৯৭৯ সালের ৯ জুলাই সবার সামনে দিনের আলোর মতো পরিষ্কার হয়ে যায় জিয়ার কুকীর্তি। তার অবৈধ শাসনামলে সংসদে অনুমোদন পাওয়া এই কালো অধ্যাদেশ সংবিধানে অন্তর্ভুক্ত করা হয়। তখন আর কারো বুঝতে বাকি থাকে না, বঙ্গবন্ধু হত্যায় নেপথ্য নায়ক ছিল এই খুনি জিয়া।

ওই কালো অধ্যাদেশে বলা হয়- ৭৫’র ১৫ আগস্টের হত্যাকাণ্ড কিংবা পরিকল্পনার সঙ্গে জড়িত কারো বিরুদ্ধে কোন আদালতে মামলা করা যাবে না। এমনকি সুপ্রিম কোর্ট কিংবা কোর্ট মার্শালেও তাদের বিচার করা যাবে না। খুনিদের বাঁচিয়ে দিয়ে শুরু করেন স্বৈরতন্ত্র।

এসব ঘটনায় প্রমাণ করে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্টের ওই কালো রাতে বঙ্গবন্ধু ও তাঁর পরিবারকে নির্মমভাবে খুনের পেছনের কলকাঠি নাড়ায় এই খুনী জিয়া। তার রক্তাক্ত হাত আরও রক্তে ভরে ওঠে অবৈধ শাসনামলে।

যদিও পরে সঠিক দিশা পেয়েছে বাংলাদেশ। ১৯৯৬ সালে সরকার গঠনের পর ১২ নভেম্বর সপ্তম জাতীয় সংসদে ইনডেমনিটি আইন বাতিল করেন শেখ হাসিনা। এটি শেখ মুজিবের হত্যাকারীদের বিচারের পথ প্রশস্ত করেছিল। জিয়ার শাসনামলে সামরিক সরকারের যাবতীয় কর্মকাণ্ডকে বৈধতা দিতে ও বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের বাঁচাতে জাতীয় সংসদে নতুন একটি আইন পাশ হয়। যা সংবিধানের ৫ম সংশোধনীতে অন্তর্ভুক্ত। এরপর ৯৬ পরবর্তী ২০০৮ সালে ক্ষমতা গ্রহণের পর ২০১০ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে সংবিধানের ৫ম সংশোধনীকে অবৈধ ঘোষণা করে বাংলাদেশ হাইকোর্ট।

কয়েকজন খুনীকে ফাঁসি দেওয়া হলেও অনেকেই মৃত্যুদণ্ডাদেশ মাথায় নিয়ে পালিয়ে আছে বিভিন্ন দেশে। এভাবেই কলঙ্কমুক্ত হয়েছে বাংলাদেশ।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরও দেখুন

আন্দোলনকারীরা শিবির, বুয়েটে ছাত্ররাজনীতি চাই: জয়

Share this… Facebook 0 Twitter Telegram Linkedin আল নাহিয়ান খান জয় বলেন, ‘বুয়েটে যে ঘটনা ঘটেছে, কোনো সাধারণ শিক্ষার্থী এ ধরনের ঘটনা ঘটাতে পারে না। সাধারণ শিক্ষার্থীরা জানে জাতির পিতা এই বাংলাদেশের জন্য কী। সুতরাং জামাত-শিবিরের প্রেতাত্মারাই এই ঘটনা ঘটিয়েছে।’ বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুয়েট) ‘ছাত্রলীগের সাবেক নেতৃবৃন্দ’ ব্যানারে হওয়া শোকসভার যারা বিরোধিতা করেছেন তাদের শিবির […]

বিস্তারিত

ধৈর্যের সীমা ছাড়ালে ছাত্রলীগ বসে থাকবে না: লেখক ভট্টাচার্য

Share this… Facebook 0 Twitter Telegram Linkedin ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য বলেছেন, ‘বুয়েটের মাটি থেকে ছাত্ররাজনীতির ইতিহাসকে মুছে ফেলতে পারবেন না। ধৈর্যের সীমা ছাড়িয়ে গেলে, বাঁধ ভেঙে গেলে ছাত্রলীগ কিন্তু বসে থাকবে না।’ সম্প্রতি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিবের স্মরণে আলোচনা সভা ও বঙ্গবন্ধু বইমেলায় তিনি এসব […]

বিস্তারিত

বিএনপিকে দাঁতভাঙা জবাব দেওয়া হবে: মায়া

Share this… Facebook 0 Twitter Telegram Linkedin বিএনপি ও তাদের দোসররা রাজপথে আগুনসন্ত্রাস, জ্বালাও-পোড়াও করলে দাঁতভাঙা জবাব দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া। জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে সম্প্রতি রাজধানীর ডেমরায় স্মরণসভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বিএনপি ও তাদের দোসরদের প্রতি এ হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন তিনি। মোফাজ্জল […]

বিস্তারিত