কুখ্যাত ইনডেমনিটির বৈধতায় কলঙ্কিত হয় সংসদ

নিউজ ডেস্ক: জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সপরিবারে হত্যা করা হয় ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট। হত্যার ৪২ দিনের মাথায়, ২৬ সেপ্টেম্বর কুখ্যাত ইনডেমনিটি অধ্যাদেশ জারি করে খুনি খোন্দকার মোশতাক। অধ্যাদেশে যেকোনো আদালতে বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের সদস্যদের হত্যার বিচারের ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়। কলঙ্কিত এ অধ্যাদেশকে আইনে পরিণত করেন জিয়াউর রহমান।

১৯৭৯ সালের ৪ এপ্রিল জিয়াউর রহমানের নেতৃত্বাধীন সরকারের প্রধানমন্ত্রী শাহ আজিজুর রহমান সংসদে পঞ্চম সংশোধনী বিলটি উত্থাপন করেন। যথাযথ নিয়ম না মেনে বিলটি সংসদে আনার বিরোধিতা করে ৪৫ জন সাংসদ ‘না’ ভোট দেন। এরপরও কোনোকিছুর তোয়াক্কা না করে ৫ এপ্রিল বিলটি পাস করার জন্য সংসদে উত্থাপন করা হয় এবং পঞ্চম সংশোধনী পাস করিয়ে নেয়।

বিল নিয়ে সংসদে বিতর্কের সময় তৎকালীন সাংসদ শাহজাহান সিরাজ এই বিলের বিরোধিতা করে একে ‘কালা কানুন’ বলে অভিহিত করেন। এছাড়াও জনাব রাশেদ খান মেনন, আসাদুজ্জামান খানসহ আরও অনেকেই একে ‘কালো আইন’ বলে অভিহিত করেন এবং এই সংশোধনীকে দেশের জন্য অমঙ্গলজনক হিসেবে চিহ্নিত করেন।

এই সংশোধনী জাতির পিতাকে হত্যার বিচারের পথ রুদ্ধ করার অধ্যাদেশকে স্বীকৃতি দেওয়াসহ আরও অসংখ্য বর্বর হত্যাকাণ্ড, নির্যাতনের বিচার না হওয়ার পথকে প্রশস্ত করেছিল।

সরকারি দলের নেতা ইঙ্গিত দিয়েছিল যে, ৭ নভেম্বর জিয়াউর রহমান ক্ষমতায় এসেছেন। এ কথার প্রসঙ্গে কুমিল্লা-৩ আসনের সাংসদ জনাব মিজানুর রহমান চৌধুরী প্রশ্ন তোলেন, ৭ নভেম্বরের আগে ১৫ আগস্ট থেকে মার্শাল ল’ র অধীনে হয়ে যাওয়া সমস্ত অন্যায়, নির্যাতন, জুলুমকে কেন legal cover দেওয়া হচ্ছে। তিনি বলেন, ‘আমি দুঃখিত যে, হাইকোর্ট, সুপ্রিম কোর্টে মানুষের আপিল শোনার যে অধিকার সেটা একটা আইনের মাধ্যমে নিয়ে যাচ্ছেন, আবার বলছেন আপনি গণতন্ত্র দিবেন’।

এভাবেই ন্যায্য বিচার পাওয়ার মৌলিক অধিকার নষ্ট করাকে তারা নাম দিয়েছিল মৌলিক অধিকার নিশ্চিতকরণ। এবং এই মৌলিক অধিকার হরণের আইন সংসদে পাস হয়ে পরবর্তীতে তৎকালীন রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের স্বাক্ষরে অনুমোদিত হয়।

এরপর বেগম খালেদা জিয়া ১৯৯১ সালে যখন প্রধানমন্ত্রী হিসেবে যখন শপথ নেয় তখন তার সামনে সুযোগ এসেছিল এই কালো আইনটি বাতিল করার। আওয়ামী লীগ এই ইনডেমনিটি আইন বাতিল এর জন্য বিল এনেছিল। কিন্তু বেগম খালেদা জিয়া এই ইনডেমনিটি আইন বাতিলে অস্বীকৃতি জানান। এর মাধ্যমে তিনি অমানবিকতার একটি জ্বলন্ত উদাহরণ সৃষ্টি করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরও দেখুন

নেতাদের হঠকারী সিদ্ধান্তে বিপর্যস্ত জামালপুর বিএনপি

Share this… Facebook 0 Twitter Telegram Linkedin দীর্ঘ দিন ধরে মাঠে নামতে পারছে না জামালপুর বিএনপি এবং এর অঙ্গ-সংগঠনের নেতাকর্মীরা। তাদের সব কার্যক্রম দলীয় কার্যালয় নির্ভর। নেতাদের হঠকারী সিদ্ধান্ত, বিভক্তিসহ বিভিন্ন কারণে জামালপুর বিএনপি বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে জামালপুর জেলা বিএনপির এক নেতা বলেন, সাধারণ সম্পাদক শাহ ওয়ারেছে আলী মামুনের হঠকারী […]

বিস্তারিত

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ভাঙচুর-অগ্নিসংযোগ, কৃষকদলের নেতা আটক

Share this… Facebook 0 Twitter Telegram Linkedin ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা কৃষকদলের যুগ্ম আহ্বায়ক আল-আমিনকে আটক করেছে পুলিশ। রোববার রাতে জেলা শহরের পাওয়ার হাউস রোড এলাকা থেকে তাকে আটক করা হয়। আটক আল-আমিন জেলা শহরের কান্দিপাড়া এলাকার বাসিন্দা। তিনি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা কৃষকদলের যুগ্ম আহ্বায়ক। ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার ওসি মোহাম্মদ এমরানুল ইসলাম জানান, […]

বিস্তারিত

চট্টগ্রামে জামায়াত-শিবিরের ৫ নেতাকর্মী গ্রেফতার

Share this… Facebook 0 Twitter Telegram Linkedin চট্টগ্রাম নগরের পাঁচলাইশ থানার হামজারবাগ এলাকা থেকে জামায়াত-শিবিরের পাঁচ নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। রোববার বিকেলে তাদের গ্রেফতার করা হয়। সোমবার সকালে এ তথ্য নিশ্চিত করেন পাঁচলাইশ থানার ওসি মো. নাজিম উদ্দিন মজুমদার। গ্রেফতারকৃতরা হলেন- নুরুল আজিম, মো. মঞ্জুর আলম, মো. মকবুল হোসাইন, মো. রোকন উদ্দিন ও আব্দুল বারেক […]

বিস্তারিত