রেমিট্যান্স কমার নেপথ্যে পাওয়া গেল ৩ হোতা ও এক কোম্পানি

নিউজ ডেস্ক : দেশের অর্থনীতিতে বিরাট জোয়ার চলছিল। হঠাৎ করেই ছেদ পড়েছে প্রবাসীদের টাকা পাঠানোয়। যার প্রভাব পড়েছে দেশের অর্থনীতিতে। কিন্তু করোনার আঘাতেও যখন টালমাটাল হয়নি বাংলাদেশের রেমিট্যান্স, তখন হঠাৎ কেন এই সময়ে প্রবাসী আয় কমলো? কেন টাকা পাঠানো কমিয়ে দিলো রেমিট্যান্স যোদ্ধারা?

প্রায় মাসখানেক সময় ধরে এই অনুসন্ধান করেছে বাংলা নিউজ ব্যাংক টিম। সেই অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে তিন হোতার নাম। সেই সঙ্গে রয়েছে বিশাল বড় এক কোম্পানি। আর রয়েছে কিছু ইউটিউবার। যাদের প্ররোচণায় টাকা পাঠানো কমিয়েছেন আমাদেরই রেমিট্যান্স সৈনিকরা।

বাংলাদেশ ব্যাংক সূত্রে জানা যায়, গত ৮ মাসের মধ্যে সবচেয়ে বড় ধস নেমেছে প্রবাসী আয়ে। যেখানে প্রতি মাসে বাংলাদেশে ২ বিলিয়ন ডলার করে গড়ে রেমিট্যান্স আসছিল সেখানে গত সেপ্টেম্বর মাসে রেমিট্যান্স প্রবাহ কমে ১৫৩ কোটি ৯৫ লাখ ডলারে নেমে ছিল। আর অক্টোবর মাসে রেমিট্যান্স আয় আরও কমে ১৫২কোটি ৫৪ লাখ ডলারে এসে ঠেকেছে।

অনুসন্ধানে দেখা গেছে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলো থেকে বৈধপথে রেমিট্যান্স কম আসছে। আর পেছনে কলকাঠি নাড়ছে কারা সেটাও উন্মোচন হয়েছে। সৌদি আরবে, কাতারে এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতে বিএনপি-জামায়াতের বিশাল একটি সিন্ডিকেট বসবাস করে আসছে। সেখানেই তারা বিভিন্ন মাধ্যমে বৈঠকের পর পর বৈঠক করে দেশে টাকা পাঠানো বন্ধের ষড়যন্ত্র করেছে।

বিদেশি সূত্র বলছে, বিএনপি-জামায়াতের এজেন্টরা বিভিন্ন দেশে সভায করছে এবং বৈধপথে রেমিট্যান্স না পাঠানোর জন্যে বিভিন্ন যুক্তি দেখিয়ে প্রবাসীদের উদ্বুদ্ধ করছে। পাশাপাশি ওই চক্রটি অবৈধ পথে বা হুন্ডির মাধ্যমে লাভজনকভাবে রেমিট্যান্স পাঠানোর জন্য চেইন তৈরি করেছে এবং সেই চেইন অনুযায়ী বাংলাদেশে এখন অবৈধ পথে টাকা আসছে।

শুধু মধ্যপ্রাচ্যই নয়, মালয়েশিয়া কিংবা সিঙ্গাপুরেও একই ধরনের কার্যক্রম বজায় রেখেছে বিএনপি ও জামায়াতের এজেন্টরা। এতে করে তাদের বিশাল পরিমাণ লাভও হচ্ছে। কেননা অবৈধ ও হুন্ডিতে টাকা আসলে কমিশন নিচ্ছে। পাশাপাশি যারা বেশি টাকা পাঠাচ্ছে, সেখান থেকে কিছু টাকা গচিয়েও নিচ্ছে নিজেরা।

অনুসন্ধান বলছে, এসব কাজে বিভিন্ন বিদেশি এজেন্ট সাহায্য করছে। আর তাতে টাকাগুলো লেনদেনের জন্য ব্যবহৃত হচ্ছে ‘বিকাশ’। ইতোমধ্যে বিকাশের লাখো অ্যাকাউন্ডে অবৈধ লেনদেনের প্রমাণ পেয়েছে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী। তাদের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু হবে দ্রুতই।

এদিকে অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে আরও একটি তাৎপর্যপূর্ণ খবর। সিলেটে বন্যার সময় জামায়াতে ইসলামি বেশ কিছু টাকা অনুদান দিয়েছে। ওই অনুদানের বেশিরভাগ টাকাই ছিল বিদেশিদের। জামায়াত নেতারা মধ্যপ্রাচ্যের প্রবাসীদের কাছ থেকে ইনিয়ে বিনিয়ে কাঁদো কাঁদো হয়ে টাকা এনেছিলেন। প্রায় শত কোটি টাকা এনে বিতরণ করেন কয়েক লাখ টাকা। আর কোটি কোটি টাকা নিয়েছেন নিজেদের পকেটে।

তাছাড়া লন্ডনে পলাতক বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানও প্রবাসীদের বিশালভাবে প্রভাবিত করছেন দেশে টাকা না পাঠাতে। তারা বলছে যে, সরকারের কাছে টাকা নেই এবং বৈধপথে টাকা পাঠালে তার পরিবার-পরিজনরা টাকা পাবে না। তাই টাকা পাঠিয়েন না। এমন কথায় প্রভাবিত করা হচ্ছে বিভিন্ন সেমিনারে।

দেশ থেকে বিদেশে যোগাযোগ করছেন, বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম। আর জামায়াতে ইসলামীর হয়ে নেতৃত্ব দিচ্ছেন আমির ড. শফিকুর রহমান। তারেকের সঙ্গে এ দুজনের ইন্ধনে কাজ করছে বিশাল একটি টিম। আর মাধ্যম হিসেবে কাজ করছে বিকাশ। যারা বছরের পর বছর লোকসানের গান শুনিয়ে সরকারের রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে আসছে।

এভাবেই দেশকে ধীরে ধীরে ফতুর করার পরিকল্পনা করেছে বিএনপি-জামায়াতের এজেন্টরা। যদিও বিশিষ্টজনরা বলছেন, দেশের অর্থনীতির যে গতি তা দেখে অনেকের মাথায় বাজ পড়ছে। তাই এই হঠকারী সিদ্ধান্ত না নিয়ে একটু দেশের দিকে তাকানো উচিত ওই চক্রের। তাদের শুভ বুদ্ধির উদয় হোক।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরও দেখুন

নেত্রকোনায় জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আমিরুল, সম্পাদক লিটন

উৎসাহ উদ্দীপনার মধ্যদিয়ে দীর্ঘ ৬ বছর পর অনুষ্ঠিত হয়েছে নেত্রকোনায় জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন। এতে সভাপতি নির্বাচিত হয়েছেন এডভোকেট আমিরুল ইসলাম এবং সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন এডভোকেট শামসুর রাহমান ভিপি লিটন। জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে ঐতিহাসিক মোক্তারপাড়া মাঠে আয়োজিত ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি মতিউর রহমান খান। এতে প্রধান অতিথি […]

বিস্তারিত

বিএনপির সমাবেশের সুবিধার্থে সব করার পরও বাড়াবাড়ি করলে ব্যবস্থা : তথ্যমন্ত্রী

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, ‘ঢাকায় বিএনপির নির্বিঘ্ন সমাবেশের সুবিধার্থে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান বরাদ্দ দেওয়ার কথা বলা এবং সেখানে ছাত্রলীগের সম্মেলনের তারিখ এগিয়ে আনা সত্ত্বেও তারা যদি বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির উদ্দেশ্যে নয়াপল্টনে সমাবেশ করতে চায়, বাড়াবাড়ি করা হয়- তাহলে সরকার যথোপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।’ সম্প্রতি সচিবালয়ে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে […]

বিস্তারিত

আওয়ামী লীগ পালিয়ে যাওয়া দল না: শেখ সেলিম

আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম এমপি বলেছেন, বিএনপি কোনো দল না। ওরা হলো ক্ষণিকের দল। বিএনপি হলো ষড়যন্ত্র আর খুনের দল। ওরা পাকিস্তানের দালাল। আর আওয়ামী লীগের শক্তি হলো এদেশের মানুষ আর বঙ্গবন্ধুর আদর্শ। সম্প্রতি গোপালগঞ্জের কাশিয়ানী উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। শেখ সেলিম এমপি […]

বিস্তারিত